কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে কিছু দিনের মধ্যেই ২ হাজার ডাক্তার ও ৬ হাজার নার্স নিয়োগ দেয়া হয়েছে। আরও ২ হাজার ডাক্তার ও ৪ হাজার নার্স নিয়োগ দেয়া হবে। বললেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (২৯ জুন) দুপুরে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের বাজেটের ওপর সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এসব ডাক্তার ও নার্স নিয়োগের বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী সংসদকে আরও বলেন, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কার্ডিওগ্রাফার এবং ল্যাব অ্যাটেনডেন্টের জন্য ৩ হাজার নতুন পদও সৃষ্টি করেছি। সেই নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। এছাড়া করোনা সংক্রমণে আক্রান্ত রোগীদের সেবায় সরাসরি নিয়োজিত ডাক্তার নার্স এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের সম্পূর্ণ সরকারি খরচে হোটেলে থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

জাতীয় পার্টির জিএম কাদেরের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকা মেডিকেলে ডাক্তার ও নার্সদের খাওয়ার খরচ হিসেবে ২০ কোটি টাকা অস্বাভাবিক মনে হচ্ছে। আমরাও এটা তদন্ত করে দেখছি। যদি কোনও অনিয়ম হয় সেটাও ব্যবস্থা নেব।

তিনি আরও বলেন, করোনা চিকিৎসা সুবিধা বাড়ানোর জন্য এরইমধ্যে ২৫০ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আরও একটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে করোনায় আক্রান্তদের মৃত্যুর হার ১ দশমিক ২৬ শতাংশ। ভারতে এই মৃত্যুর হার ৩ দশমিক ০৮ শতাংশ, পাকিস্তানে ২ দশমিক ০৩ শতাংশ, যুক্তরাজ্যে ১৪ দশমিক ০৩ শতাংশ এবং যুক্তরাষ্ট্রে ৫ শতাংশ। এই পরিসংখ্যানান্থে দেখা যায় আমরা কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করায় বাংলাদেশের করোনাভাইরাসে মৃত্যুহার নিম্ন পর্যায়ে রাখতে সক্ষম হয়েছি। যদিও একটা মৃত্যুও কাম্য নয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: