আওয়ামী লীগের সদ্য ঘোষিত কমিটিতে নাম নেই অন্তত ১০ হেভিওয়েট নেতার। তাদের মধ্যে রয়েছেন দুজন মন্ত্রী এবং একাধিক প্রতিমন্ত্রী-উপমন্ত্রীও। শনিবার আওয়ামী লীগের কাউন্সিল অধিবেশনে ঘোষিত কমিটি বিশ্লেষণে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

৮১ সদস্যের কার্যনির্বাহী কমিটির ৪২ পদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে গতকাল। বাকি রয়েছে ৩৯টি পদ। আর ৫১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদের ৪০ পদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে; বাকি রয়েছে ১১টি পদ। ২৪ ডিসেম্বর নতুন কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যদের সভাশেষে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে রোববার জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

প্রেসিডিয়াম সদস্য পদে যাদের নাম এসেছে, তাদের মধ্যে তিনজন ছাড়া সবাই আগের কমিটিতে একই পদে ছিলেন। চমক হিসেবে যুক্ত হয়েছেন তিন নতুন মুখ। তারা হলেন- আগের কমিটির যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান এবং সাবেক নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।

বর্তমান মন্ত্রিসভার দুই মন্ত্রী, চার প্রতিমন্ত্রী, দুই উপমন্ত্রীসহ আগের কমিটির ১০ প্রভাবশালী নেতার নাম নেই কমিটিতে। এটি নিয়ে দলীয় ফোরামে আলোচিত হচ্ছে। কেউ কেউ বলছেন, সরকার ও দল আলাদা করার অংশ হিসেবে তাদের বাদ দেয়া হয়েছে কমিটি থেকে। তাদের সরকারে মনোযোগী হওয়ার বার্তা দেয়া হয়েছে। আবার কেউ কেউ বলছেন, পূর্ণাঙ্গ কমিটি এখনও ঘোষণা করা হয়নি। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে তাদের রাখা হতে পারে।
নতুন কমিটি বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন নেই কমিটিতে। নেই কোনো চমকও। পুরনো নেতায় নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিদায়ী কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্যদের সবাই নতুন কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। তবে আগের কমিটির শূন্য তিন পদে নতুন করে তিনজনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তারা হলেন– আওয়ামী লীগের সদ্য বিদায়ী কমিটির দুই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমান এবং সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী ও শ্রমিক নেতা শাজাহান খান।

এ ছাড়া আগের কমিটি থেকে পদোন্নতি পেয়েছেন আটজন। আর একেবারেই নতুন মুখ এসেছেন মাত্র দুজন। তারা হলেন- প্রেসিডিয়াম পদে শাজাহান খান ও মহিলাবিষয়ক সম্পাদক পদে সাবেক মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।

প্রেসিডিয়ামে কোনো পরিবর্তন না এলেও গতকাল পর্যন্ত যাদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে, সেখানে নেই আগের কার্যনির্বাহী সংসদের ১০ প্রভাবশালী নেতার নাম। তাদের মধ্যে সাতজনই মন্ত্রিসভার সদস্য। তারা হলেন- বিদায়ী কমিটির অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, আইনবিষয়ক সম্পাদক ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, বিদায়ী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম, সাংগঠনিক সম্পাদক ও শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক ও সরকারের মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা ইন্দিরা এবং ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ।

এ ছাড়া বিদায়ী উপদেষ্টা পরিষদের দুজনের নাম ঘোষণায় আসেনি। তারা হলেন- মহীউদ্দীন খান আলমগীর ও রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু। যদিও উপদেষ্টা পরিষদের ১১টি পদ এখনও খালি আছে।

নতুন কমিটিতে স্থান পেলেন যারা: সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। প্রেসিডিয়াম সদস্য- সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, বেগম মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, মোহাম্মদ নাসিম, কাজী জাফরউল্লাহ, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, নুরুল ইসলাম নাহিদ, ইঞ্জি. মোশাররফ হোসেন, পীযুষ কান্তি ভট্টাচার্য, ড. মো. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, শ্রী রমেশ চন্দ্র সেন, অ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান খান, অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু, মো. শাজাহান খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং মো. আবদুর রহমান।

চার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক- মাহাবুবউল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, হাছান মাহমুদ ও বাহাউদ্দিন নাছিম। আট সাংগঠনিক সম্পাদকের মধ্যে পাঁচজন- আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এসএম কামাল হোসেন এবং মির্জা আজম।

বিভাগীয় সম্পাদক- আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক শাম্মী আহমেদ, আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরু, কৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জি. আবদুস সবুর, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকি, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মৃণাল কান্তি দাস, যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক হারুনুর রশীদ, শিক্ষা ও মানব সম্পাদকবিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাঁপা, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল এবং স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া। সম্পাদকীয় ৫টি পদ ফাঁকা রয়েছে।

উপদেষ্টা পরিষদ: ৫১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদে ৪০ জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। তারা হলেন- ডা. এসএ মালেক, আবুল মাল আবদুল মুহিত, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, অ্যাডভোকেট মো. রহমত আলী, এইচটি ইমাম, ড. মশিউর রহমান, অধ্যাপক ড. আলাউদ্দিন আহমেদ, অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ, অ্যাডভোকেট সৈয়দ আবু নসর, শ্রী সতীশ চন্দ্র রায়, অধ্যাপক ড. আবদুল খালেক, অধ্যাপক ডা. রুহুল হক, ইঞ্জি. খন্দকার মোশাররফ হোসেন এমপি, কাজী আকরাম উদ্দীন, অ্যাডভোকেট সৈয়দ রেজাউর রহমান, ড. অনুপম সেন, অধ্যাপক ড. হামিদা বানু, অধ্যাপক ড. মো. হোসেন মনসুর, অধ্যাপক সুলতানা শফি, এএফএম ফখরুল ইসলাম মুন্সী, অ্যাম্বাসেডর মোহাম্মদ জমির, গোলাম মওলা নকশাবন্দি, ড. মির্জা এমএ জলিল, ড. প্রণব কুমার বড়ুয়া, মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল হাফিজ মল্লিক, অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমান খান, ড. গওহর রিজভী, মো. রশিদুল আলম, স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, কাজী সিরাজুল ইসলাম, আলহাজ মকবুল হোসেন, মোজাফফর হোসেন পল্টু, অ্যাডভোকেট আবদুল বাসেত মজুমদার, মুকুল বোস, সালমান এফ রহমান, ইনাম আহমেদ চৌধুরী, আতাউর রহমান, জয়নাল হাজারী। বাকি ১১টি পদ পরে আলোচনা করে পূরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

সংসদীয় বোর্ড: কাউন্সিল অধিবেশনে সংসদীয় বোর্ড ও স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড গঠন করা হয়। সংসদীয় বোর্ডে আছেন- শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফর উল্লাহ, ওবায়দুল কাদের, মো. রাশিদুল আলম। বাকি নাম পরে ঘোষণা করা হবে।

স্থানীয় সরকার নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ড: স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডে আছেন- শেখ হাসিনা, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, কাজী জাফরউল্লাহ, মোহাম্মদ নাসিম, ড. মো. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) ফারুক খান, ওবায়দুল কাদের, মো. রাশিদুল আলম, মাহবুবউল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, মো. আবদুর রহমান, ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

পদোন্নতি পেলেন যারা: সদ্য বিদায়ী কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক ও আবদুর রহমানকে দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম প্রেসিডিয়াম সদস্য করা হয়েছে। যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হয়েছেন আগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ও সাংগঠনিক সম্পাদক থেকে আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম।

কার্যনির্বাহী সংসদ সদস্য থেকে সাংগঠনিক সম্পাদক পদ পেয়েছেন এসএম কামাল হোসেন ও মির্জা আজম। কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য নজিবুল্লাহ হিরু নতুন কমিটিতে আইনবিষয়ক সম্পাদক এবং উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া হয়েছেন দফতর সম্পাদক।

এ ছাড়া আগের কমিটির দফতর সম্পাদক থেকে প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: