মুসলমান ধর্মাবলম্বীদের কাছে অন্যতম পবিত্র স্থান আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে হাজার হাজার ফিলিস্তিনির সঙ্গে ইসরায়েলি পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে অন্তত ৪১ জন আহত হয়েছেন।

রোববার (১১ আগস্ট) খবর ছড়ায়, এদিন কয়েকজন ইহুদিকে মসজিদটিতে প্রার্থনা করতে দেওয়া হবে। এতে বিক্ষোভ শুরু করেন মুসলমানরা। তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাস, সাউন্ড গ্রেনেড ব্যবহার করে ইসরায়েলি পুলিশ।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম এনবিসি নিউজ জানিয়েছে, পবিত্র ঈদুল আজহার নামাজের জন্য কয়েক হাজার ফিলিস্তিনি আল আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে জড়ো হন।

আর ঈদুল আজহার দিনেই পবিত্র আল-আকসা মসজিদে মুসল্লিদের ওপর হামলা করেছে ইসরায়েলি বাহিনী।

ঈদুল আজহার প্রথম দিনে নামাজ আদায় করতে মুসলিমদের প্রথম কিবলা আল-আকসা মসজিদে উপস্থিত হন হাজার হাজার ফিলিস্তিনি।

এবার ঈদুল আজহা এবং ইহুদিদের তিশা বা’ভ উদযাপন একই দিনে পড়ায় আল-আকসা ঘিরে উত্তেজনা তৈরি হয়।

আল-আকসা চত্বরে ডানপন্থী ইহুদি সেটলাররা ঢুকতে পারে এমন আশঙ্কায় আগে থেকেই সেখানে জড়ো হন মুসলিমরা। এ সময় তাদের বলতে শোনা যায়, ‘নিজেদের সব উজাড় করে দিয়ে আল-আকসা তোমাকে পুনরুদ্ধার করব আমরা।’

এদিকে সংঘাত এড়াতে ইহুদিদের আল-আকসায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইসরায়েলি পুলিশ। তবে শেষ পর্যন্ত তাদের ঢুকতে দেওয়া হতে পারে এমনটা আশঙ্কা করছেন মুসলিমরা।

রেড ক্রিসেন্টের তথ্যমতে, এ ঘটনায় অন্তত ৩৭ জন মুসল্লি আহত হয়েছেন। ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের চার পুলিশ সদস্যও আঘাত পেয়েছেন।