এমপি হয়েই শেখ তন্ময়ের তিন দিনের ‘আল্টিমেটাম’

সুদর্শন, হাস্যোজ্জ্বল, সুবক্তা হিসেবে অল্পদিনেই সবার দৃষ্টি কেড়েছেন। নাম শেখ সারহান নাসের তন্ময়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতি তিনি। তার বাবার নাম শেখ হেলাল উদ্দীন। আর তার দাদা হলেন বঙ্গবন্ধুর ভাই ও সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) শেখ আবু নাসের। তার শরীরে বঙ্গবন্ধু পরিবারের রক্ত। এবারের নির্বাচনে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়েছেন। প্রথমবারেই বাজিমাত করেছেন। বিপুল ভোটে জয়ী হয়ে প্রমাণ করেছেন বঙ্গবন্ধুর যোগ্য উত্তরসূরি তিনি।

সন্ত্রাস-দুর্নীতি, চাঁদাবাজ, দখলবাজ ও মাদকমুক্ত বাগেরহাট গড়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে বাগেরহাট-২ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছিলেন শেখ সারহান নাসের তন্ময়।

এবার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে বাগেরহাটে মাদক বিক্রি ছাড়তে কারবারিদের তিনদিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন সদর আসনের নব নির্বাচিত সংসদ তন্ময়। এ সময়ের মধ্যে মাদক বিক্রি বন্ধ না করলে প্রশাসন ব্যবস্থা নেবে বলে জানান তিনি।

গতকাল (৯ জানুয়ারি) বুধবার সন্ধ্যায় বাগেরহাট পৌরসভা অডিটোরিয়ামে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন।

মাদক কারবারিদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘আপনাদের হাতে দুই তিনদিনের মতো সময় হাতে আছে, বাগেরহাটের কারা মাদক বিক্রি করেন তারা কিন্তু চিহ্নিত। তাদের তালিকা আমার হাতে আছে। আমি ওই তালিকা কাউকে এখনো দেইনি বা এখনো কাউকে বাগেরহাট ছাড়তেও বলিনি।’

তিনি বলেন, বাগেরহাটে মাদকের ভয়াবহতা এখন মারত্মক পর্যায়ে পৌঁছেছে। মাদক শহর থেকে গ্রামে গ্রামে পৌছে গেছে। প্রশাসনের বিশেষ বাহিনী তালিকা ধরে খুব শিগগির মাদক কারবারিদের ধরতে অভিযান শুরু করবে। বাগেরহাটে মাদকের কোনো স্থান থাকতে দেয়া হবে না বলেও হুশিয়ারী দেন তিনি।

নব নির্বাচিত আওয়ামী লীগের এই তরুণ সংসদ বলেন, সম্ভবনাময় তরুণ প্রজন্মের সামনে এগোনোর বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে মাদক। তরুণরা যদি মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে তাহলে তাদের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হবে না। দেশে প্রায় সাড়ে চার কোটি তরুণ রয়েছেন। তাদের মাদক থেকে দূরে রাখতে হবে। তাই বাগেরহাট শহরকে আধুনিক উন্নত করে গড়ে তুলতে মাদক নির্মূল করাই হবে আমার প্রথম এবং প্রধান কাজ।

বাগেরহাট পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খান হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফকরুল আলম সাহেব, সাংগঠনিক সম্পাদক নকিব নজিবুল হক নজু, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আহাদ উদ্দীন হায়দার, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আওয়ামী লীগ নেতা ড. একে আজাদ ফিরোজ টিপু ও জেলা তাঁতী লীগের সভাপতি তালুকদার আব্দুল বাকি প্রমূখ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ