ভারতের কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখার (এলএসি) ওপারে চীন সেনা ও যুদ্ধাস্ত্র মোতায়েন বাড়ালে ভারতও পাল্লা দিয়ে সেনা মোতায়েন বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। বুধবার (২৭ মে) ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহের সঙ্গে সামরিক বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়। ভারতের যেসব অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ নিয়ে চীন আপত্তি তুলেছে, তা-ও চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয় ভারত।

চীনা সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, মঙ্গলবার চীনের প্রেসিডেন্ট সেনাবাহিনীর উদ্দেশ্যে বলেন যাতে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকা হয়। দেশকে সুরক্ষা দিতে সবরকমভাবে প্রস্তুত থাকতেও বলেন তিনি। একদিকে ভরতের সঙ্গে সীমান্তে সংঘাত চলছে। অন্তত ১০০ তাঁবু বানিয়ে লাদাখের কাছে ঘাঁটি গেড়েছে চীনের সেনা। অন্যদিকে, ভাইরাস নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে বাকযুদ্ধ তুঙ্গে। এছাড়া হংকংয়ে নতুন করে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। এই পরিস্থিতির মধ্যে যুদ্ধের বার্তা দিলেন চীনা প্রেসিডেন্ট। চীনের কিছু সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে চীনের দ্বিতীয় এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ার শিপইয়ার্ড ছেড়ে বের হচ্ছে। যদিও ওই ছবি বা ভিডিও-র সত্যতা যাচাই করা হয়নি, তবে ওই ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পরই শি জিনপিং এমন বার্তা দেয়ার চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে। এদিকে, চীন সীমান্তে পরিস্থিতি থমথমে। মঙ্গলবার এই বিষয়ে নয়া দিল্লিতে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল। এছাড়াও ছিলেন সংশ্লিষ্ট দফতরের শীর্ষ কর্মকর্তারা। ছিলেন তিন সেনার প্রধানরা। চিফ অফ ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াতও অংশ নেন বৈঠকে। আরও একটি পৃথক বৈঠকে বিদেশ সচিবের সঙ্গে কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত ৫ মে থেকেই লাদাখে ভারত-চীন সীমান্তে নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ভারত ও চীন সেনার সংঘর্ষ হয়৷এরপর ৯ মে সিকিমের নাকু লা-য় মুখোমুখি সং’ঘর্ষে জড়ায় ভারত ও চীন সেনা।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: