কারাগারে গতকাল রাতে যা খেয়েছেন খালেদা

ডেস্ক রিপোর্টঃ জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি হিসেবে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে পুনার ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের লালদালান খ্যাত পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে।

২০১৬ সালের ২৯ জুন এই লালদালান থেকে ৬ হাজার ৪০০ বন্দিকে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়ার রাজেন্দ্রপুরের নতুন কারাগারে স্থানান্তর করা হয়। এর মাধ্যমে ২২৮ বছরের পুরনো এই কারাগার বন্ধ হয়েছিল। কেউ কখনো কল্পনাও করেননি কোনো সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে আর কোনোদিন এ কারাগারে ফের বন্দিজীবন কাটাতে হবে। কিন্তু ১ বছর ৭ মাস ১০ দিন পর এই লালদালানে বন্দি হলেন খালেদা জিয়া।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা ওই মামলায় বৃহস্পতিবার তাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন বকশীবাজারে স্থাপিত বিশেষ আদালতের বিচারক ড. আখতারুজ্জামান।

বৃহস্পতিবার কারাগারে প্রথম রাত কেটেছে বিএনপি চেয়ারপারসনের। কারাগার সূত্রে জানা গেছে, রাতে খালেদা জিয়াকে খাবার হিসেবে ভাত, মাছ ও সবজি দেয়া হয়েছে। আর তার চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে একজন চিকিৎসকও নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এছাড়া গৃহপরিচারিকা ফাতেমাকে তার সঙ্গে রাখার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫ এর বিচারক আখতারুজ্জামান এ অনুমতি দেন।

উল্লেখ্য, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে আজ কারাগারে গেছেন ভাই সাঈদ ইসকান্দারসহ চারজন। শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সাড়ে তিনটার দিকে তারা ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে (পুরাতন) প্রবেশ করেন।

এর আগে সকাল থেকেই খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা কারার জন্য কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছেন খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লা মিয়া।

এসময় তিনি বলেন, অনুমতি পেলেই আমরা দেখা করব। কারাবিধি অনুযায়ী স্বজন এবং আইনজীবীরা দেখা করতে পারেন।

ঢাকার জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের আবেদন প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা দেখা করতে আবেদন করেছেন। তাদের দেখা করানো প্রক্রিয়া চলছে।