কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স জরুরি বিভাগে চিকিৎসকের ওপর হিজড়াদের হামলা-ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনায় নার্স আবুল খায়ের আহত হয়েছেন।

সোমবার বিকালে এ ঘটনার পর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুল আলী বলেন, ওইদিন বিকালে বিষ সেবনকারী একজন নারী রোগীকে কয়েকজন হিজড়া হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। ওই সময় কর্মরত ২ জন চিকিৎসক ছিলেন। ওই সময় চুমকি নামে জনৈক হিজড়া নেত্রী চিকিৎসা নিতে সরকারি সদর হাসপাতালে আসেন।

দায়িত্বরত সহকারী নার্স মো. আবুল খায়ের বিষ পান করা রোগীকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ওয়াশ করার জন্য প্রস্তুত করতে যান। ওই সময় হঠাৎ করে ক্ষিপ্ত হয়ে চুমকির সঙ্গে থাকা ও বহিরাগত লোকজন আবুল খায়েরের ওপর হামলা করে। তারা জরুরি বিভাগে ব্যাপক ভাংচুর চালায়।

এ সময় নার্সের সঙ্গে থাকা মোবাইল ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলেই হিজড়ারা পালিয়ে যায়।

কর্মরত নার্স আবুল খায়ের বলেন, হামলার পুরো ঘটনাটি হাসপাতালে জরুরি বিভাগে হয়েছে। বিষ সেবনকারী একজন নারীর চিকিৎসা নিতে গেলেই তাৎক্ষণিক কয়েকজন হিজড়া এসে জরুরি বিভাগে ভাংচুর চালায়। আমি বাধা দিলে এ সময় আমার ওপর হামলা চালিয়ে নগদ টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নেয় হিজড়ারা। আমার সঙ্গে থাকা কর্মরত ডা. শাহিনুর আক্তারের ওপর হামলা চালিয়ে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় লাকসাম থানায় ১টি অভিযোগ দায়ের করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

লাকসাম থানার ওসি নিজাম উদ্দিন বলেন, হামলার ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।