নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা ডিবির অভিযানে জাহাঙ্গীর আলম এবং মোঃ শুক্কুর ও গিয়াস উদ্দিন নামের আন্ত:জেলা ডাকাত দলের ২ সদস্য গ্রেফতার করা হয়েছে। শনিবার রাতে চট্টগ্রাম ইপিজেড এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা চলতি বছরের ১৩ মে জেলার নাঙ্গলকোট উপজেলার মৌকরা ইউনিয়নের গোমকোট গ্রামের পুলিন চন্দ্র দেবনাথের বাড়ীতে দেশীয় তৈরী অস্ত্রসস্ত্র, ধারালো ছোরা ও লোহার রড নিয়ে ডাকাতি করেছিল। ওই সময় গ্রামবাসীর হামলায় এক ডাকাত নিহত হয়েছিল।

ডিবি ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সশস্ত্র ৮/১০ জনের ডাকাত পুলিন চন্দ্র দেবনাথের বাড়ি থেকে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও ঘরে থাকা মোবাইল, ল্যাপটপ, কাপড়-চোপড়সহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল লুটে নিয়েছিল। ওই ঘটনায় পুলিন চন্দ্র দেবনাথ বাদী হয়ে পর দিন নাঙ্গলকোট থানায় মামলা দায়ের করে। পরে গত ১৯ জুলাই পুলিশ সুপারের নির্দেশে মামলাটি তদন্তের জন্য ডিবিতে প্রেরণ করা হলে ডিবির এসআই মামলাটির তদন্ত শুরু করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও অভিযানের নেতৃত্বদানকারী এসআই মোঃ শাহ্ কামাল আকন্দ পিপিএম জানান, প্রযুক্তি ব্যবহার করে ডাকাত জাহাঙ্গীর আলম (২৯) ও শুক্কুরকে গ্রেফতার করা হয়। জাহাঙ্গীর লহ্মীপুর জেলার চন্দ্রগঞ্জ উপজেলার কালিবৃত্তি গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে এবং অপর ডাকাত মোঃ শুক্কুর @ গিয়াস উদ্দিন (২৯) কক্সবাজার জেলার সদর উপজেলার কুতুবদিয়া গ্রামের আবদুর রশিদের ছেলে। উভয় ডাকাত রোববার বিকালে কুমিল্লার বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট শাহানাজ মনিরের আদালতে ১৬৪ ধারা ঘটনার স্বীকারোক্তি জবানবন্দি দেয়ার পর তাদের কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

>>আরো পড়ুনঃ  মুরাদনগরে গোমতী নদীতে গোসল করতে গিয়ে দুই শিশুর মৃত্যু

এদিকে উভয় ডাকাত গ্রেফতারের কারণে মামলার বাদী ও স্থানীয় লোকজন কুমিল্লা পুলিশ সুপার মো: শাহ আবিদ হোসেন, ডিবির ওসি নাসির উদ্দিন মৃধা ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহ কামাল আকন্দসহ গ্রেফতার অভিযানে অংশ নেয়া ডিবির সকল পুলিশ কর্মকর্তা ও সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ