কুমিল্লায় স্কুল-কলেজ পড়ুয়াদের অর্ধশত ভয়ঙ্কর ‘গ্যাং’

ডেস্ক রিপোর্টঃ মহানগরীর স্কুলগুলোতে ভয়ঙ্কর কিশোর ‘গ্যাং’ গড়ে উঠেছে। এসব ‘গ্যাং’য়ের সদস্যদের ব্যাগে-পকেটে থাকে ছুরিসহ অন্যান্য ধারালো অস্ত্র। নগরীর বিভিন্ন স্টেশনারি ও কামারদের দোকানে সহজলভ্য হওয়ায়, তা কিনে নেয় বিভিন্ন ‘গ্যাং’য়ের সদস্যরা। আর এসব ধারালো অস্ত্র দিয়ে সহজেই প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে তারা।

এমন কিশোর অপরাধ দমন করতে নগরীর বিভিন্ন স্টেশনারি ও কামারদের দোকানে অভিযান চালিয়ে সাড়ে ৪শ ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করেছে কুমিল্লা কোতয়ালী থানা পুলিশ।

জানা গেছে, নগরীর খ্যাতনামা বিদ্যালয়গুলোতে বিভিন্ন নামে অন্তত অর্ধশত কিশোর ‘গ্যাং’ গড়ে উঠেছে। এসব ‘গ্যাং’য়ের সদস্যরা জড়িয়ে পড়েছে নানা অপরাধে। এক গ্রুপের সঙ্গে অন্য গ্রুপের সদস্যদের কথা তর্কাতর্কি হলে খুনে গিয়ে পরিণতি শেষ হয়।

গত রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে কুমিল্লা মডার্ণ হাই স্কুলের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী মোন্তাহিন ইসলাম মিরনকে (১৪) ছুরিকাঘাত করে তার সহপাঠীরা। পরে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর মৃত্যু হয় মিরনের। শহরের ঠাকুরপাড়া রোডের মদিনা মসজিদ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

গত ১৬ এপ্রিল বুধবার কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুলের এক শিক্ষার্থীর ছুরিকাঘাতে আহত হয় কুমিল্লা জিলা স্কুলের শিক্ষার্থী মারুফ। পরে তাকে আশঙ্কাজনকভাবে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় সহপাঠীরা। গত ২০১৮ সালের ১১ জুলাই অজিতগুহ কলেজের শিক্ষার্থী অন্তুকে (১৮) প্রেম সংক্রান্ত বিরোধের জেরে নগরীর ধর্মসাগরপাড়ে খুন করে তার সহপাঠীরা।

এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাখাওয়াত হোসেন জানান, কিশোর অপরাধ বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর। এ বিষয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের নিয়ে সচেতনতামূলক সভা সেমিনার করে যাচ্ছে কুমিল্লা জেলা পুলিশ।

সূত্রঃ আমাদের সময়

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ