নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জেষ্ঠতা লংঘন করে কুমিল্লা বার্ডে পরিচালক নিয়োগের অভিযোগে কালোব্যজ ধারন করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন ফ্যাকাল্টি অফিসাররা। পল্লী উন্নয়ন গবেষণা ও প্রকল্প বাস্তবায়নে অভিজ্ঞ অনুষদ সদস্যদের উপেক্ষা করে জুনিয়র ব্যক্তিকে নিয়োগের চেষ্টা হয়েছে বলে অভিযোগ তাদের। এদিকে বিষয়টি সুরাহা করতে সন্ধ্যায় কর্মকর্তাদের সাথে জরুরী বৈঠক ডাকেন বার্ডের মহাপরিচালক।

বুধবার বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমীতে (বার্ড) সাম্প্রতিক পরিচালক পদে অপেক্ষাকৃত জুনিয়র ব্যক্তিকে নিয়োগের প্রতিবাদ জানিয়ে অনুষদ সদস্যরা এ প্রতিবাদ করেন। সকাল থেকেই কর্মকর্তারা বুকে কালোব্যজ ধারন করে প্রাতিষ্ঠানিক কাজে যোগদান করেন। তাদের অভিযোগ, পরিচালক পদে যে নিয়োগ হয়েছে তাতে বার্ডের অপেক্ষমান যোগ্যতাসম্পন্ন যুগ্মপরিচালকদের উপেক্ষা করে তুলনামূলক কম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন জুনিয়র ব্যক্তিকে নিয়োগ দেয়া হয়। এরফলে বার্ডে দীর্ঘদিন কর্মরত অভিজ্ঞতাসম্পন্ন অনুষদ সদস্যদের যোগ্যতাকে অবমূল্যায়ন করা হয়।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লায় জন্ম নিবন্ধন নিয়ে সীমাহীন দূর্নীতির অভিযোগ

পরিচালক পদের একজন জেষ্ঠ পরিক্ষার্থী বার্ডের যুগ্ম পরিচালক আব্দুল কাদের সেসময় সরকারি ছুটি নিয়ে ওমরাহ হজ্ব করতে দেশের বাইরে অবস্থান করেন। তাকে বাদ তড়িঘড়ি এই আয়োজনে হতবাক জেষ্ঠ প্রার্থী মোঃ আবদুল কাদের। তিনি অভিযোগ করেন, গত ২৭ডিসেম্বর পরিচালক পদে যে নিয়োগ পরীক্ষাটি অনুষ্ঠিত হয় তার চিঠি ইস্যু করা হয় ২৫ডিসেম্বর। দ্রুত সময়ে ডাকে চিঠি ইস্যু করলেও একদিনের ব্যবধানে কি করে বাইরের পরীক্ষার্থীদের কাছে চিঠি পৌছুলো এবং তারা অংশগ্রহণ করলেন। নিয়মমতে এই আবেদন করতে হয় ফিরতি খামে, সেটা করা হয়নি। দেশে যখন জাতীয় নির্বাচনের মত গুরুত্বপূর্ণ একটি আয়োজন চলছিল তখন এমন নিয়োগ আয়োজন নিয়োগ প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করে।

বার্ড অফিসার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি ও বার্ডের যুগ্মপরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, শরিফুল ইসলাম নামে ৪০ বছর বয়সী জুনিয়র ব্যক্তিকে তড়িঘড়ি করে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। শরিফুল ইসলামের বাড়ি রংপুর, শুনেছি মহাপরিচালকের সাথে পূর্বে একটি প্রকল্পে কাজ করেছিলেন তিনি। বার্ডে কখনো এমন নিয়োগ হয়নি। এভাবে অভিজ্ঞ অনুষদ সদস্যদের অবমূল্যায়ন করা হলে বার্ড যে লক্ষ্যে এর প্রতিবাদে বুধবার কর্মস্থনে অফিসাররা কালোব্যাজ ধারণ করে প্রতিবাদ জানিয়েছে।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লা নগরী পানিবন্দি, জনদুর্ভোগ চরমে

বার্ডের মহাপরিচালক এম. মিজানুর রহমান বলেন, এই নিয়োগটি সচিবালয় থেকেই হয়। চাকুরীর বয়স কমবেশি হতেই পারে এটা নিয়ে প্রতিবাদের কি আছে। তাদের কালোব্যজ ধারনের বিষয়টি আমি জেনেছি।

বার্ডের একাধিক কর্মকর্তা অভিযোগ করেন, গ্রাম হবে শহর; বার্ড সরকারের এই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাকে সামনে রেখে নিরলসভাবে কাজ করছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে কর্মরত জেষ্ঠ অনুষদ সদস্যদের ডিঙ্গিয়ে যে নিয়োগ প্রদান করা হয়েছে তাতে সবার মনোবল ভেঙে গেছে। অতীতেও এমন নিয়োগের ফলে অনেকেই বার্ড থেকে চাকুরী ছেড়ে চলে গেছেন। অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কর্মকর্তারা কাজে মনোবল হারালে বার্ড তার লক্ষমাত্রা অর্জনে বাধাগ্রস্থ হতে পারে বলে মনে করেন তারা।

বার্ড অফিসার্স এসোসিয়েশনের সাধারন সম্পাদক ও উপপরিচালক মোঃ আব্দুল মান্নান বলেন, পরিচালক নিয়োগের বিষয়ে প্রতিবাদ জানিয়ে কর্মকর্তারা কালোব্যজ ধারন করেছেন। এ বিষয়ে আর কিছু বলতে পারছি না। মহাপরিচালক মহোদয় জরুরী মিটিং ডেকেছেন।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লায় টানা বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত

জানা যায়, ২০১২সালে এমনই একটি প্রক্রিয়ায় যুগ্মপরিচালক পদে অনভিজ্ঞ ও তুলনামূলক জুনিয়র প্রার্থীকে নিয়োগ দেয়া হয়। যার প্রতিবাদে যুগ্মপরিচালক পদের অন্যতম প্রার্থী বার্ডের অনুষদ সদস্য উপপরিচালক আনোয়ারুল আজিম চাকুরী থেকে অব্যাহতি নেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ