ডেস্ক রিপোর্টঃ অর্থমন্ত্রী আ.হ.ম মুস্তফা কামালের স্বপ্নেগড়া নবগঠিত কুমিল্লার লালমাই উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রতন কুমার সাহার দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতায় অতিষ্ঠ উপজেলার বিভিন্ন স্কুল ও মাদরাসার শিক্ষকগণ। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকাÐের অভিযোগ তুলেছেন লালমাই উপজেলায় অবস্থিত ৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, শিক্ষা অফিসার রতন কুমার সাহা লালমাই উপজেলায় যোগদানের পর থেকে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনৈতিক কর্মকাÐ চালিয়ে আসছেন। অভিযোগের মধ্যে রয়েছে বিনামূল্যে পাঠ্য বইয়ের সরকার প্রদত্ত পরিবহন খরচের টাকা কোনো প্রতিষ্ঠানকে প্রদান না করে রতন কুমার নিজেই তা আত্মসাত করেছেন। এছাড়া সম্প্রতি এনটিআরসিএ কর্তৃক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া অনলাইন এমপিওভুক্তির অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল বাবদ শিক্ষক প্রতি সর্বনিম্ন ৫ হাজার টাকা নিয়ে এমপিওভুক্তির জন্য অগ্রায়ন করেন এবং উচ্চতর স্কেল, টাইম স্কেল অগ্রায়ন ও প্রধান শিক্ষকের অনলাইন এমপিওভুক্তির জন্য ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত গ্রহণের মাধ্যমে অগ্রায়ন করেন। ম্যানেজিং কমিটি গঠন প্রক্রিয়া ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ে তার পছন্দের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব প্রদানের ক্ষেত্রেও বিভিন্ন অজুহাতে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। ইউএসইও ডট লালমাই ই-মেইল ব্যবহার করে প্রতি বিদ্যালয়ের ই-মেইলে আগাম ভ্রমণ সূচির চিঠি দিয়ে প্রতিষ্ঠানে গিয়ে অনৈতিক সুবিধা গ্রহণ করেছেন। এছাড়াও জাতীয় স্কুল ও মাদরাসার শীতকালীন-গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতার নামে শিক্ষার্থী প্রতি ফি ৫ টাকা এবং প্রতিষ্ঠান প্রতি ২ হাজার টাকা ধার্য করে নামমাত্র খেলা পরিচালনার মাধ্যমে আর্থিক বাণিজ্য করে আসছেন। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক বরাবর অভিযোগ করা ৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রতন কুমার সাহাকে অনতিবিলম্বে লালমাই উপজেলা থেকে প্রত্যাহার এবং তার দুর্নীতি তদন্ত করে শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।

>>আরো পড়ুনঃ  কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ডিন,প্রভোস্টসহ প্রশাসনিক পদে রদবদল

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুমিল্লা জেলা শিক্ষা অফিসার আবদুল মজিদ বলেন, কোন শিক্ষা কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এক সঙ্গে এতো সংখ্যক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের অভিযোগ করাটা নজিরবিহীন। তাই অভিযোগটি আমরা তদন্ত করে দেখছি। বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানোর পাশাপাশি ওই শিক্ষা কর্মকর্তাকে অভিযোগের জবাব দিতে বলেছি।

এদিকে অভিযোগ প্রমাণিত হলে যেকোন শাস্তি মেনে নিতে রাজি উল্লেখ করে লালমাই উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রতন কুমার সাহা বলেন, তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ আনা হয়েছে তা মিথ্যা। আমিও চাই এসব অভিযোগের তদন্ত হোক।

সূত্রঃ ইনকিলাব