ডেস্ক রিপোর্টঃ গাজীপুরে এক ব্যক্তি ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। অভিযোগ উঠেছে, বলাৎকারের পর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার ‘হুমকির মুখে’ তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

নিহত জামাল উদ্দিন শ্রীপুর উপজেলার তেলিহাটি টেপিরবাড়ি গ্রামের মৃত আহাদ আলীর ছেলে।

ঘটনা প্রসঙ্গে জামাল উদ্দিনের ছেলে হৃদয় জানায়, সোমবার দুপুরে নিজ বাড়ির বারান্দায় ঝুলে আত্মহত্যা করেছেন তার বাবা।

সে আরো জানায়, এ ঘটনায় একই এলাকার চাঁন মিয়ার ছেলে সিয়াম, রইছ উদ্দিনের ছেলে সাদেক মিয়া এবং ওই দু’জনের সহযোগী রনি, পিন্টু, সজল, শাওনসহ কমপক্ষে ১০ জন অংশ নেয়।

হৃদয় জানায়, বেশ কয়েকদিন ধরে অভিযুক্তরা তার বাবার কাছে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করছিল। ওই টাকা না দেয়ায় রোববার বিকেলে তার বাবাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে বৃন্দাবন-বাদশাহনগর সরকারি বনে নিয়ে যান। সেখানে তাকে বলাৎকার ও ঘটনার ভিডিও ধারণ করেন অভিযুক্তরা।

তিনি আরো জানান, সোমবারের মধ্যে হঠাৎ করে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। অন্যথায় ধারণ করা ভিডিও ফেসবুক ও ইউটিউবে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেন। ওই সময় বিষয়টি তিনি পরিবারের সদস্যদের জানান এবং ওইদিন সকালেই বাড়ির লোকজনদের শ্বশুরবাড়ি পাঠিয়ে দেন। পরে দুপুরে খবর আসে বাবার মরদেহ বারান্দার আড়ার সঙ্গে ঝুলছে।

শ্রীপুর থানার এসআই নয়ন বলেন, রোববার ঘটনাটি জামাল উদ্দিন তার স্বজন ও এলাকাবাসীকে জানিয়েছিলেন। স্থানীয়রাও তাকে থানায় জিডি করার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু এর আগেই তিনি আত্মহত্যা করেন।

তিনি আরো বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তদের ধরতে অভিযান চলছে।

সূত্রঃ ডেইলি বাংলাদেশ