চান্দিনায় অদৃশ্য শক্তিতে চলছে অবৈধ ডায়াগনষ্টিক সেন্টার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্লা চান্দিনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার চলছে অদৃশ্য শক্তিতে। সিভিল সার্জন আসার আগেই এই সমস্ত ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ হয়ে যায় সিভিল সার্জন চলে গেলে আবারো খোলা হয়। প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা সাধারণ রোগীরা ঘন্টার পর ঘন্টার চিকিৎসা সেবার জন্য অপেক্ষা করে ডাক্তার পাওয়া গেলেও ব্যবস্থা পত্রে পরীক্ষা নিরিক্ষা করতে বাহিরে ডায়াগনস্টিক সেন্টারে গিয়ে প্রতারিত হতে হচেছ প্রতিনিয়ত। প্রতারণার মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে ধোকা দিয়ে বোকা বানিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে রমরমা ব্যবসা।

সরেজমিনে দেখা যায়, কাউন্সিলর মিনোয়ারা বেগম পরিচালিত মা মেডিকেল ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারটি সিভিল সার্জন আসার পূর্বেই বন্ধ হয়ে যায়, জানতে চাইলে কাউন্সিলর মিনোয়ারার ছেলে মাহবুব জানায় নাজমুল নামের এক ব্যক্তি সিভিল সার্জন অফিসে কর্মরত আছেন। তিনি সিভিল সার্জন কোথায় যাচ্ছেন তার খবর রাখেন। চান্দিনা আসার সময় তাদেরকে ফোনে বলে দেন সিভিল সার্জন চান্দিনা আসছে। তাই তারা বন্ধ করে ফেলেন। তিনি বন্ধ করবেন কেন জানতে চাইলে জানান, আমাদের কাগজপত্র সব কিছুই ঠিক আছে কিন্তু লাইসেন্স দেয়না সিভিল সার্জন অফিস। তবে আশা করি পেয়ে যাব। কুমিল্লার জেলার বিভিন্ন উপজেলায় যখন সিভিল সার্জন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে তখন এরকম অবৈধ ডায়াগনস্টিক সেন্টার হাসপাতালের সামনে অবৈধভাবে পরিচালনার বিষয়টি সাধারণ মানুষকে ভাবিয়ে তুলে। তাছাড়া টেকনোলজিস্ট ও প্যাথলজিস্ট নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন।

কুমিল্লা জেলা সিভিল সার্জন ডা: মুজিবুর রহমান জানান, চান্দিনা মা মেডিকেল ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লাইসেন্স নেই। তবে এই প্রতিষ্ঠান লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেছে কিনা তা এই মুহুর্তে বলতে পারছিনা। আমি চান্দিনায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করতে গিয়ে এটি বন্ধ পেয়েছি। তবে বিষয়টি আমি দেখব।