চৌদ্দগ্রামে বাস পোড়ানো মামলা জামায়াত নেতা আব্দুল্লাহ মোঃ তাহেরকে কারাগারে প্রেরণ

মারুফ আহমেদঃ বিএনপি-জামায়াতের হরতাল অবরোধের সময় ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে আগুন দিয়ে ৮যাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যা মামলার প্রধান আসামি জামায়াত নেতা ডা. সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে জামীন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর গতকাল বুধবার দুপুরে হত্যা ও নাশকতার দুটি মামলায় আত্মসমর্পণ করলে, জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক আলী আকবর তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

আদালত ও মামলার বিবরণে জানা যায়,২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী বিএনপি-জামায়াতের দেশব্যাপী হরতাল অবরোধ চলাকালে কক্সবাজার থেকে ঢাকাগামী আইকন পরিবহনের একটি বাস ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুর এলাকায় পৌঁছলে দুর্বৃত্তরা বাসটি লক্ষ্য করে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে জ্বলন্ত দ্বগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে সাতজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পর আরো এক জনসহ ৮ যাত্রীর মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই নুরুজ্জামান হাওলাদার বাদী হয়ে হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে পৃথক ২টি মামলা করেন। জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা ও চৌদ্দগ্রামের সাবেক এমপি ডা. আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে প্রধান আসামি করা হয়েছিল একটি মামলায় ও পরে নাশকতার মামলায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে হুকুমের আসামি করা হয়। আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরের আইনজীবী মো. শাহাজান বলেন, দীর্ঘদিন অসুস্থতাজনিত কারণে আদালতে উপস্থিত হতে পারেননি। তিনি কিডনি সহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। বিষয়টি তিনি বিজ্ঞ আদালতকে অবহিত করলে আদালত জেল কর্তৃপক্ষকে তার সুচিকিৎসা প্রদানের নির্দেশ দেন।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ