চৌদ্দগ্রামে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর সংঘর্ষ, প্রায় ২০ জন আহত

ডেস্ক রিপোর্টঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে দুই গ্রামবাসীর মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। জানা যায়, বুধবার (২০ জুন) বিকালে উপজেলার বাতিসা ইউনিয়নের দেবীপুর ও সোনাপুর গ্রামের বাসিন্দাদের মাঝে মারামারির এ ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষের ঘটনায় সোনাপুরের বেলায়েত, শামীম, জাহাঙ্গীর, রিপন, দেবীপুরের রায়হান, প্রবাসী লিটনসহ উভয় গ্রামের কমপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের অনেকেই চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধিন রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার (১৮ জুন) তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মারামারির এ ঘটনার সূত্রপাত হয়। জানা যায়, সোমবার রাত আনুমানিক সাড়ে দশটার সময় সোনাপুরের সিএনজি চালক আহসান সিএনজি চালিয়ে দেবীপুর হয়ে তার নিজ বাড়ীতে যাচ্ছিলেন, পথিমধ্যে তিনি দেখেন, দেবীপুরের কিছু বখাটে যুবক রাস্তার মধ্যে ঘুমিয়ে আছে। তিনি তাদেরকে রাস্তা থেকে সরে যেতে বললে, অজ্ঞাত ওই যুবকরা আহসান এর উপর এলোপাতাড়ি হামলা করে। হামলার ঘটনায় সে মারাত্মক আহত হয়। পরে তার চিৎকার শুনে স্থানীয়রা এসে তাকে উদ্ধার করে সোনাপুর পৌঁছে দেয়। পরবর্তীতে সোনাপুর গ্রামের বাসিন্দারা ঘটনাটি জানতে পেরে তাৎক্ষণিকভাবে দেবীপুরবাসীর উপর সংঘবদ্ধ হামলা করে। তারই জেরে বুধবার (২০ জুন) বিকালে পূণরায় দেবীপুরের রায়হান নামে এক যুবক ও অজ্ঞাতনামা আরো দু’জনকে স্থানীয় ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন স্থানে পেয়ে আকষ্মিক হামলা করে সোনাপুর গ্রামের কতিপয় যুবক। পরে ঘটনাটি জানাজানি হলে দেবীপুরবাসীও জড়ো হয়ে সোনাপুরবাসীর উপর ক্ষীপ্ত হয়ে হামলা করে। হামলার ঘটনায় অনেকেই আহত হয়েছে বলে জানা যায়। পরবর্তীতে চৌদ্দগ্রাম থানা পুলিশ এসে সংঘর্ষের ঘটনাটি নিয়ন্ত্রণে আনে ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ