চৌদ্দগ্রামে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রীকে ভারত সীমান্তে নিয়ে গণধর্ষণ

চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে সপ্তম শ্রেণী পড়ুয়া স্কুলছাত্রীকে ভারত সীমান্তে নিয়ে ধর্ষণ করেছে বখাটে দুই বন্ধু। এঘটনায় দুই বখাটের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছে স্কুলছাত্রীর পিতা রফিকুল ইসলাম। অভিযুক্ত বখাটেরা হচ্ছে-উজিরপুর ইউনিয়নের চকলক্ষীপুর গ্রামের সুলতান মিয়ার মহিউদ্দিন(২০) ও আলী নেওয়াজের পুত্র জালাল উদ্দিন(২০)। তথ্যটি নিশ্চিত করে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে চৌদ্দগ্রাম থানার এসআই ফজলুল হক বলেছেন, অভিযুক্ত বখাটেদের গ্রেফতারের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

জানা গেছে, উজিরপুর ইউনিয়নের পূর্ব বেলঘর গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে মিয়াবাজার লতিফুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণীতে পড়ালেখা করে। রোববার সকালে বখাটে মহিউদ্দিন ও জালাল পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ওই ছাত্রীকে রাস্তা থেকে জোরপূর্বক সিএনজি অটোরিকশায় উঠিয়ে কাঠালিয়া সীমান্তে নিয়ে যায়। সেখানে জঙ্গলের ভিতরে স্কুলছাত্রীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোরপূর্বক পর্যায়ক্রমে ধর্ষণ করে দুই বন্ধু। ধর্ষণ শেষে বখাটে দুই বন্ধু স্কুলছাত্রীকে রেখে পালিয়ে যায়। এঘটনায় সোমবার রাতে স্কুলছাত্রীর পিতা রফিকুল ইসলাম বাদি হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দুই বখাটের বিরুদ্ধে একটি মামলা(নং-৬১) করেছেন। এদিকে শিগগিরই দুই বখাটেকে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে স্কুলছাত্রীরা সহপাঠিরা।