জয়ে ফিরতে চায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স

ডেস্ক রিপোর্টঃ রীতিমতো ধ্বংসলীলা বললে ভুল হবে না। মঙ্গলবার রাতে রংপুর রাইডার্সের বিরুদ্ধে ৬৩ রানে অলআউট হয়ে গিয়েছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। অথচ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ষষ্ঠ আসরের অন্যতম শক্তিধর দল কুমিল্লা। তামিম ইকবাল, স্টিভেন স্মিথ, এভিন লুইস, শোয়েব মালিকদের নিয়ে গড়া ব্যাটিং লাইন এভাবে ভেঙে পড়ার দৃশ্য হজম করা সহজ ছিল না দলটির দর্শকদের জন্য। মাশরাফি বিন মুর্তজার বোলিংয়ে পথ হারিয়ে বসা কুমিল্লা ম্যাচটাও হেরেছিল নয় উইকেটে।

দুঃস্বপ্নের ম্যাচ শেষে গতকাল দুপুরে কঠোর অনুশীলন করেছে কুমিল্লা দল। বিসিবি একাডেমি মাঠে কোচ মোহাম্মদ সালাউদ্দিনের তত্ত্বাবধানে দুই ঘণ্টা অনুশীলন করেছেন ইমরুল কায়েস-এনামুল হক বিজয়রা। তবে অনুশীলনে আসেননি শহীদ আফ্রিদি। শেষ দুই ম্যাচে আফ্রিদিই ছিলেন দলটির সেরা পারফরমার। গতকাল অনুশীলনে আসলেও রানিংয়ের বাইরে কিছু করেননি স্মিথ।

অনুশীলন শেষে শোয়েব মালিক বলেছেন, ক্রিকেটে এমনটা হতেই পারে। কুমিল্লার ৬৩ রানে অলআউট হওয়াকে স্বাভাবিকভাবেই দেখছেন তিনি। আরও বলেছেন, পরের ম্যাচেই ঘুরে দাঁড়ানোর আশা করছে দল। আগামীকাল দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে রাজশাহী কিংসের বিরুদ্ধে খেলবে কুমিল্লা।

টুর্নামেন্টে এখন অব্দি বড় স্কোর গড়তে সমর্থ হয়েছে শুধু ঢাকা ডায়নামাইটস। একই রকম শক্তিধর দল হয়েও কুমিল্লার ব্যাটিং লাইন জ্বলে উঠতে পারছে না। গতকাল জানতে চাইলে শোয়েব মালিক বলেছেন, ‘আমার মনে হয় এখনও প্রাথমিক পর্যায়ের খেলা হচ্ছে। সব ব্যাটসম্যানের জন্যই কন্ডিশন অবশ্যই কঠিন, কিন্তু আমার মনে হয় ঢাকা অনেক রান করেছে। অবশ্য ম্যাচটি দিনের ছিল। যেহেতু আমরা জানি শিশিরের ব্যাপারটা এখানে আছে। সবকিছুতে পরিবর্তন এসে যায় যখন পিচে শিশির পড়ে। কিন্তু যাই ঘটেছে তা শেষ হয়ে গেছে। যা আসবেই সেটাকে আমরা বদলাতে পারব না।’

বাজে পারফরম্যান্সের পর মঙ্গলবার রাতে কুমিল্লার গোটা দল এক সঙ্গে আড্ডা দিয়েছে, রাতের খাবার খেয়েছে। শোয়েব মালিকও জানালেন দলটা মানসিকভাবে প্রস্তুত পরের ম্যাচের জন্য। তিনি বলেছেন, ‘আমরা খুবই ইতিবাচক এবং আমাদের ড্রেসিং রুমে এমন কিছু খেলোয়াড় আছে যারা অবশ্যই চিন্তা করবে যে, কি ভুল হচ্ছে এবং সামনের খেলাগুলোয় কি করণীয় আছে।’

মাত্র ৬৩ রানে গুটিয়ে যাওয়া প্রসঙ্গে পাকিস্তানের এই সাবেক অধিনায়ক বলেছেন, ‘ঠিক আছে, এমনটা হতেই পারে। আমরা তিন ফরম্যাটের সবগুলোতে অবশ্যই দেখে থাকবেন যে, শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপগুলো ৪০/৫০ রানেই থেমে গেছে। তাই এমনটা যেকোন ক্রিকেটেই হতে পারে।’

আগামীকাল নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে রাজশাহীর বিরুদ্ধে জয়ের জন্য মুখিয়ে থাকবে কুমিল্লা। শোয়েব মালিক বলেছেন, ‘অবশ্যই সবগুলো দল জেতার জন্যই মুখিয়ে থাকবে। আমাদের মনেও একই লক্ষ্য আছে। এখন শুধু পরিকল্পনাগুলোর প্রয়োগ দরকার। এটা অনেকাংশেই নির্ভর করে প্রথম তিনজন ব্যাটসম্যানের ওপর। যেই আসুক তার দায়িত্ব হচ্ছে বড় স্কোর করা এবং আমার মনে হয় দ্রুত উইকেট তুলে নেওয়াটাই এ ফরম্যাটের চাবিকাঠি।’

বিপিএলে দুই ম্যাচে ১৩ রান করেছেন শোয়েব মালিক। আর দুই ম্যাচ খেলার পর ফিরে যাওয়ার কথা তার। দক্ষিণ আফ্রিকায় পাকিস্তানের ওয়ানডে দলে যোগ দিবেন তিনি। শেষ দুই ম্যাচে দলের জন্য বোলিংয়ে, ব্যাটিংয়ে আরও বেশি অবদান রাখতে চান ৩৬ বছর বয়সী এই অলরাউন্ডার।

সূত্রঃ ইত্তেফাক

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ