তনু’র ৩য় মৃত্যু বার্ষিকীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কুমিল্ল ভিক্টোরিয়া কলেজ শিক্ষার্থী সোহাগী জাহান তনু হত্যাকা-ের তিন বছর অতিবাহিত হলেও হত্যাকারীদের শনাক্ত না হওয়ায় আবারও রাজপথে নেমেছে শিক্ষার্থীরা।

বুধবার কুমিল্লা পুবালী চত্বরের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন কুমিল্লার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

তনুর নিজের সংগঠন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ থিয়েটার আয়োজন করে মিলাদ ও দোয়ার। সেখানে উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর রতন কুমার সাহা এবং থিয়েটারের নাট্যকর্মীবৃন্দ।

তনু হত্যার বিচার আজ নিরবে কাঁদে। সময়ের পরিক্রমায় হারিয়ে যেতে বসেছে সেই নামটি। তনু নামে একটি মেয়ে ছিল সেই কথাটিই যেন আজ কেউ স্মরণ করে না।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, হত্যাকা-ের এতদিন পরেও খুনিরা শনাক্ত না হওয়ার আমরা হতাশ। সিআইডি ডিএনএ প্রতিবেদন ব্যতীত প্রথম ও দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত মিথা তথ্য দেওয়া হয়েছে।

মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারী শিক্ষাথীরা বলেন, সেনাবাহিনীদের এলাকার নিরাপত্তার বেষ্টনীর মধ্যে তনুকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছে তা কোন ভাবেই কাম্য নয়। এ হত্যাকা-ের সাথেই যারাই জড়িত তাদের আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তির মাধ্যমে প্রমান করে দিতে হবে যেন ভবিষ্যতে এমন নেক্কারজনক কর্মকা- কেউ করার সাহস না পায়।

তারা আরো বলেন, হত্যাকা- ঘটনার এতদিন অতিক্রম হলেও প্রশাসন লোক দেখানো তদন্তকার্য চালিয়ে যাচ্ছে। তনু হত্যাকারীদের ফাঁসিতে না ঝুলিয়ে রাজপথে থেকে আমরা আন্দোলন করব।

উল্লেখ্য যে ২০১৬ সালের ২০ মার্চ কুমিল্লা সেনানিবাসের অলিপুর নামক স্থানে কলেজ ছাত্রী তনুর লাশ পাওয়া যায়। পরদিন ২১ মার্চ লাশের প্রথম ময়নাতদন্ত হয়। এতে মৃত্যু কারণ ও ধর্ষণের আলামত পাওয়া যায়নি বলে প্রতিবেদন দেয়া হয়। পরে ৩০ মার্চ আদালতের আদেশে তনুর লাশ কবর থেকে তোলা হয়। ওইদিনই কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের গঠিত মেডিকেল বোর্ড দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত করে। সেই ময়নাতদন্তর প্রতিবেদন রবিবার প্রকাশ করে। তবে উক্ত রিপোর্টে তনু মৃত্যুর কারণ অজানা থাকায় ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে কুমিল্লা সর্বস্তরের মানুষ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ