এ,আর আহমেদ হোসাইনঃ দেবীদ্বারে হত্যার উদ্দেশ্যে আওয়ামীলীগ নেতার উপর বর্বরোচিত হামলা করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটে বুধবার দিবাগত রাত অনুমান ১টায় উপজেলার গুনইঘর উত্তর ইউনিয়ন’র গুনাইঘর গ্রামে প্রয়াত শিল্পী কালিপদ বাবুর বাড়ির সামনে।

স্থানীয় সূত্রে জানান, বুধবার রাতে দেবীদ্বার উপজেলার গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়ন আ’লীগের কাউন্সিল অধিবেশন সংক্রান্তে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি হাজী আবুল কাসেম ওমানীর দপ্তরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভা শেষে রাত আনুমান ১ঘটিকার সময় গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি ও দেবীদ্বার সুজাত আলী সরকারী কলেজ’র সাবেক জিএস মোঃ মুকবল হোসেন মুকুল(৪৬) মোটর সাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে গুনাইঘর গ্রামের প্রয়াত বেতার শিল্পী কালিপদ বাবুর বাড়ির সামনে পৌঁছলে একদল সন্ত্রাসী চলন্ত মোটর সাইকেলে হামলা চালায়। ওই সময় সন্ত্রাসীদের হামলার কারণে আ’লীগ ইউনিয়ন সভাপতি জিএস মুকুল মোটর সাইকেল থেকে মাটিতে পড়ে যায়, তখন সন্ত্রাসীরা তাকে রড ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে এবং মুকুলকে টেনে হেচড়ে প্রয়াত বেতার শিল্পী কালিপদ বাবুর পরিত্যাক্ত নির্জন বাড়িতে হত্যার উদ্দেশ্যে নিয়ে যায়। ওই মুহুর্তে গুনাইঘর ইউনিয়ন পরিষদের প্রয়াত সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমানের ছেলে শুভ গ্রামের বাড়ি থেকে তার দেবীদ্বারের বাসায় ফেরার পথে রাস্তায় জিএস মুকুলের মোটর সাইকেল পড়ে থাকতে দেখে আত্মচিৎকার শুরু করে। ওই সময় শুভর আত্মচিৎকারের কারনে এলাকার মানুষজন ছুটে আসতে দেখে সন্ত্রাসীরা মুকুলকে ফেলে পালিয়ে যায়।

পরে শুভসহ স্থানীয় লোকজন গুরতর আহত মুকুলকে উদ্ধার করে দেবীদ্বার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় জিএস মোকবল হোসেন মুকুল বাদী হয়ে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের ছেলে আবদুল্লাহ আল মামুন ও খোয়াজ আলীর পুত্র নায়েব আলীসহ আরো অজ্ঞাত ১০/১২ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি হত্যার চেষ্টা মামলা দায়ের করেন।

ঘটনা বিষয়ে আহত জিএস মোঃ মুকবল হোসেন মুকুল বলেন, আমি আমাদের ইউনিয়ন আ’লীগের কাউন্সিল অধিবেশন সংক্রান্তে আলোচনা শেষে মোটর সাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে গুনাইঘর উত্তর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ খোরশেদ আলমের ছেলে আব্দুল্লাহ আল মামুন’র নেতৃত্বে ১০/১২ জনের একদল সন্ত্রসী আমার উপর হামলা করে। তাদের কাছে জীবন বিক্ষা চাইলে তারা আমাকে হত্যা করবে বলে টেনে হেচড়ে কালিপদ বাবুর পরিত্যাক্ত বাড়িতে নিয়ে যায়। ওই সময় আমার আত্মচিৎকারে প¦ার্শবর্তী মানুষজন ছুটে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান একেএম সফিকুল আলম কামাল জানান, রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় হত্যার জন্য মুকুলের উপর এ হামলা করা হয়েছে। এ হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য জোর দাবি জানাই।

এ ব্যাপারে দেবীদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহিরুল আনোয়ার জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশ বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালাচ্ছে।