নাঙ্গলকোটে নারীর দেহ তল্লাশিঃ পুলিশকে গণধোলাই!

নাঙ্গলকোট প্রতিনিধিঃ কুমিল্লা  থেকে  নোয়াখালীগামী  উপকূল  পরিবহন (বাস) থামিয়ে এক মহিলা যাত্রীর দেহ তল্লাশিকে কেন্দ্র করে মনোহরগঞ্জ থানার তিন পুলিশ সদস্যকে গণধোলাই দিয়েছে এলাকাবাসী।  নাঙ্গলকোট উপজেলার লধুয়া নামকস্থানে এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশের অভিযোগ সন্দেহ জনক এক মাদক বিক্রেতাকে তল্লাশি করতে গেলে এই আপত্তিকর ঘটনা ঘটে।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, এস আই কুতুব উদ্দিনের নেতৃত্বে  তিনজন পুলিশ সদস্য কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক সড়কের লুধুয়া নামকস্থানে নোয়াখালীগামী একটি উপকূল বাসকে দাড় করিয়ে তল্লাশি শুরু করেন। তল্লাশির একপর্যায়ে এক নারীরকে স্থানীয় রাইস মিলের ভিতরে নিয়ে গেলে তার চিৎকারে এলাকাবাসী এসে তাকে উদ্ধার করে, ওই পুলিশ সদস্যদের জুলিয়াসের নেতৃতে গণধোলায় দেয়। তাৎক্ষনিক মনোহরগঞ্জ থানার ওসি শামসুজ্জামান এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।
স্থানীয় আদ্রা দক্ষিণ ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি জুলিয়াস বলেন, দেহ তল্লাশির নামে মহিলা যাত্রীর শ্লীলতাহানির চেষ্টার অভিযোগ উঠে পুলিশের বিরুদ্ধে। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
এ বিষয়ে মনোহরগঞ্জ থানার ওসি শামসুজ্জামান বলেন, কুমিল্লা থেকে নোয়াখালীগামী উপকূল বাসটিকে পুলিশ তল্লাশির জন্য থামায়। মাদক আটকে পুলিশ চেক তো করতে হবে। চেক না করে পুলিশ মুখে বললে পাচারকারী তো আর মাদক বের করবে না।
তিনি আরো বলেন, একজন নারী যাত্রীকে মাদক বিক্রেতা হিসেবে সন্দেহ হলে পুলিশ তার দেহ তল্লাশি করতে গেলে এলাকার কিছু যুবক পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।
এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আইয়ুবের সাথে মুঠো ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।