বাসা ভাড়ার পনেরশ’ টাকা দিতে না পারায় ভাড়াটিয়ার ঘরে খাবার চাল নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে বরগুনার এক বাড়ি মালিকের বিরুদ্ধে। ভাড়াটিয়া ফারুকের অভিযোগ, চলমান এই লকডাউনে অসহায়ত্বের সুযোগে জোর করে তার ঘরে থাকা এক মণ চাল নিয়ে গেছেন বাড়ি মালিক। তবে বাড়ি মালিকের দাবি, ঘর ভাড়া দিতে না পারায় ভাড়াটিয়া নিজেই চাল দিয়েছেন তাকে। বরগুনার সদর উপজেলার গৌরিচন্না ইউনিয়নের মহাসড়ক এলাকায় মঙ্গলবার (৫ মে) দুপুরের এ ঘটনা ঘটে।

ভাড়াটিয়া ফারুক বলেন, ‘‘আমি একজন পরিবহন শ্রমিক। দির্ঘদিন ধরে সরওয়ার মোল্লার গৌরিচন্নার মহাসড়ক এলাকার একটি বাসায় দেড় হাজার টাকা মাসিক চুক্তিতে ভাড়া থাকি। চলমান পরিস্থিতিতে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় কর্মহীন হয়ে পড়েছি। এজন্য মার্চ ও এপ্রিল দুই মাসের পনেরশ’ করে মোট তিন হাজার টাকা ভাড়া পরিশোধ করতে ব্যর্থ হই। এর মধ্যে ঘর মালিকের কাছে অগ্রিম পনেরশ’ টাকা ভাড়া দেওয়া ছিল।

‘মঙ্গলবার দুপুরে বাকি এক মাসের টাকার জন্য তিনি আমার বাসায় আসেন। সে সময় আমার অসহায়ত্বের কথা তাকে বলি। তাকে জানাই আমার ঘরে চাল ছাড়া কিছু নেই। পরে ঘর ভাড়ার পনেরশ’ টাকা না পেয়ে আমার সেই এক মণ চাল তিনি নিয়ে যান।” তবে চালের দাম ষোলশ’ টাকা নির্ধারণ করে একশ টাকা ঘর মালিক তাকে ফেরত দিয়ে যান বলেও জানান ফারুক।

ঘর মালিক সরোয়ার মোল্লা বলেন, ‘ভাড়াটিয়া ফারুক স্বেচ্ছায় ঘর ভাড়ার পরিবর্তে আমাকে চাল দিয়েছে। তাই আমি চাল নিয়েছি। ঘর ভাড়া কিংবা ভাড়ার পরিবর্তে চাল নেওয়ার জন্য আমি তাকে কোনো প্রকার চাপ প্রয়োগ করিনি।’ বরগুনার সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সাহাবুদ্দিন সাবু বলেন, ‘করোনায় কর্মহীন হয়ে পড়া বাসচালক ফারুকের সঙ্গে যা ঘটেছে এর থেকে নির্মম আর কিছু হতে পারে না। আমরা এ ঘটনায় অভিযুক্ত ঘর মালিকের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

বরগুনার জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, ‘বাসা ভাড়ার পরিবর্তে ভাড়াটিয়ার ঘরের চাল নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি আমরা শুনেছি। এ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছি। সত্যতা পেলে এই ন্যক্কারজনক ঘটনার জন্য ঘর মালিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ তিনি আরও বলেন, ‘জেলাজুড়ে আমাদের খাদ্য সহায়তা কার্যক্রমসহ নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান চলমান। বাসচালক ফারুকসহ অন্য চালকদের সহায়তায় বরগুনা জেলা প্রশাসন এগিয়ে আসবে।’

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: