বুড়িচংয়ে শশুর বাড়ীর বড়ই গাছে জামাইর ঝুলন্ত লাশ

ডেস্ক রিপোর্টঃ কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার এবদারপুর গ্রামে শশুর বাড়ীতে তালাক স্ত্রীকে দেখতে এসে লাশ হলেন জামাই ইকবাল হোসেন(৩২)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,জেলার বরুড়া উপজেলার বাতাবাড়িয়া গ্রামের হানিফ মিয়ার প্রবাসী ছেলে ইকবাল হোসেন । গত ২০০৮সালে শরীয়ত মোতাবেক পারিবারিক ভাবে বিয়ে করেন একই জেলার বুড়িচং উপজেলার এবদারপুর গ্রামের মৃত মতিন মিয়ার মেয়ে রোকসানা আক্তারকে। সুখের স্বপ্ন দেখে বিয়ে করলেও তাদের সংসার জীবনটা তেমন একটা সুখের হয়নি। সংসারের বিভিন্ন ঝামেলার কারণে ২০১৩সালে ভেঙ্গেই যায় তাদের সংসার । তালাক হয় নোকসানা এবং আলাদা হয়ে গেলেও তাদের স্বামী স্ত্রীর ফোনে যোগাযোগ ছিলো বলে পরিবার সূত্রে জানা যায়। এর মাঝেই রোকসানা এখন নতুন করে আবার সংসার করছেন অন্য স্বামীর ঘরে। প্রবাসী ইকবাল বিদেশ থেকে এসে আর ফিরে যায়নি নিজের বাড়িতেও। পরিবারের অজান্তে দেশে এসে ঢাকায় চাকরি করতেন।

(২২ সেপ্টেম্বর সকালে শনিবার) দরজা খুলে ৪ বছর আগে তালাক দেয়া স্ত্রী রোকসানার বাবার বাড়ির উঠানের বড়ই গাছের সাথে দড়ি দিয়ে ফাঁসিতে ঝুলন্ত অবস্থায় ইকবালের লাশ দেখতে রোকসানার পরিবার। রোকসানার পরিবারের সাথে কথা বলে জানা যায় সকালে ঘর থেকে বেরিয়ে উঠানে ঝুলন্ত লাশ দেখে পুলিশে খবর দেয় তারা। পরে পুলিশ এসে লাশের একটি সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে।

বুড়িচং থানার দেবপুড় ফাঁড়ী ইনচার্জ আবু ইউসুফ ফসিউজ্জামান বলেন আত্বহত্যা নাকি হত্যাকান্ড এখন সঠিক ভাবে বলা সম্ভব নয়। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপালে প্রেরণ করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে না অাসা পর্যন্ত সঠিক কারণ অামরা বলতে পারছি না। তবে অামাদের অাইনের প্রক্রিয়াধীন অব্যাহত থাকবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ