ব্রাহ্মণপাড়ায় সরকারী রাস্তা ও সীমানা প্রাচীর ভাংচুরের অভিযোগ

আশিকুর রহমানঃ কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার শশীদল ইউনিয়নের নাগাইশ গ্রামে গতকাল বুধবার সকালে সরকারী রাস্তা ও একটি বাড়ীর সীমানা প্রাচীর ভাঙ্গার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় এবং ক্ষতিগ্রস্থ বাড়ীর মালিক জয়নাল আবেদীন ও একই বাড়ীর সফিকুল ইসলামের ছেলে সুলতান মিয়া জানান, ঘটনার দিন সকালে দেখতে পাই ফয়েজিয়া রাজ্জাকিয়া দাখিল মাদ্রাসার বেশ কিছু শিক্ষার্থী ও শিক্ষকগণ আমাদের বসত বাড়ীরর পাশে সরকারী রাস্তার পিচ, ইটের খোয়া ও কার্পেটিং, তুলে রাস্তাটি সরানোর চেষ্টা করছে। আমরা বাধা দিলে উক্ত মাদ্রাসার শিক্ষক মাওঃ উবায়েদুল্লা ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের সাথে কথা কাটার এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে চলে যায়। এর কিছুক্ষণ পর আবারো বেশ কিছু শিক্ষার্থী নিয়ে ফয়েজিয়া রাজ্জাকিয়া দাখিল মাদ্রাসার সামনের শশীদল টু বড়ধুশিয়া সড়কের পিচ, ইটের খোয়া ও কার্পেটিং তুলে ফেলে। এ সময় সড়কের পশ্চিম পাশে আমাদের লাগানো কয়েকটি সুপারি গাছসহ অন্যান্য গাছ কেটে ফেলে। এছাড়াও আমাদের বাড়ীর টিন দ্বারা নির্মিত সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে খালে ফেলে দেয়। আমরা বাধা দিলে ফয়েজিয়া রাজ্জাকিয়া দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক মাওঃ উবায়েদুল্লার নেতৃত্বে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা আমাদের বাড়ী ঘরে হামলা চালায় এবং ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে।

এই ব্যাপারে ব্রাহ্মণপাড়া থানার এস আই যুযুৎসু যশ চাকমা ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন। তিনি জানান, খবর পেয়ে সঙ্গীয় ফোর্স সহ আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখি, নাগাইশ ফয়েজিয়া রাজ্জাকিয়া দাখিল মাদ্রাসার দক্ষিণ পশে শশীদল টু বড়ধুশিয়া সড়কের কিছু অংশ পিচ, ইটের খোয়া উঠানো এবং রাস্তার পশ্চিম পাশে থাকা একটি সীমানা প্রাচীর ভেঙ্গে পাশের খালে ফেলে রাখা হয়েছে। এই ব্যাপারে উক্ত মাদ্রাসার সহ সুপার মাওঃ কামাল উল্লাহ জানান, এই ঘটনাটি মূলত সামাজিক বিষয়, এটি সামাজিক ভাবে আপোষ হয়ে যাবে। পরে ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ গিয়াস উদ্দিন মাষ্টার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং উভয় পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য আহবান জানান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ