নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র কাদের মির্জা দেশব্যাপী ভাইরাল হতে উল্টাপাল্টা কথা বলছেন বলে মন্তব্য করেছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী।

মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় চরভদ্রাসন উপজেলার গাজীরটেকে একটি রাস্তার উদ্বোধন ও শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। নিক্সন চৌধুরী সংসদ সদস্যদের নিয়ে বিরূপ ও অশ্লীল মন্তব্য করায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কাদের মির্জার বিচার দাবি করেন।

নিক্সন চৌধুরী বলেন, ‘কয়েক দিন ধরে দেখতেছি নোয়াখালীর এক পাগল আমার পেছনে লেগেছে। যারে আমি চিনিও না জানিও না, দেখিও নাই কোনো দিন। ঘুম থেকে উঠে মোবাইল খুলে দেখি এক ব্যক্তি আমাকে নিয়ে উল্টাপাল্টা কথা বলতেছে। ওনি আমাদের বড় এক নেতার ভাই, কয়দিন আগে আবার মেয়রও হইছে। বক্তব্য দিতে গেলেই প্রতিদিন এখন আমাকে গালি দেয়, যাকে আমি চিনিই না।’

‘ওই ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন, দেশের সব এমপি মদ খায়। ওনি একজন মেয়র, সংসদ সদস্যদের নিয়ে এমন মন্তব্য ওনি কীভাবে করেন? ওনি বলেছেন, নিক্সন চৌধুরী তার মামার জোরে চলে। নিক্সন চৌধুরী তার মামা শেখ সেলিমের জোরেও চলে না, তার ভাই লিটন চৌধুরীর জোরেও চলে না, নিক্সন চৌধুরী চলে জনগণের জোরে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ওনি বলছে আমি নাকি ভোট চুরি করে এমপি হয়েছি। এটা কী পাগলেও বিশ্বাস করবে? দেশের মানুষ জানে ফরিদপুর-৪ আসনে কেমন নির্বাচন হয়েছে। জনগণের ভোটে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্ল্যাহকে হারিয়ে নির্বাচিত হয়েছি।’

‘আমি চিনিও না জানিও না ওই লোককে। হঠাৎ কইরা ওই ব্যক্তি আমাকে নিয়ে উল্টাপাল্টা মন্তব্য শুরু করছে। তাকে পাগল ছাড়া আর কিছু বলা যায় না। ওনি আওয়ামী লীগের বড় এক নেতার ভাই। সে তার বড় ভাই নিয়া উল্টাপাল্টা কথা বলে, বড় ভাবিকে নিয়ে বলে। আর ওনি পাগল হইবে না কেন, ওনার নাকি বউও চলে গেছিল, পরে আবার ফেরতও আইছে।’

নিক্সন বলেন, ‘এগুলো কেন করেন জানেন? ভাইরাল হওয়ার জন্য, দেশের মানুষ যাতে এ পাগলরে চেনে। দেশের মানুষ চিনছে এইটা পাগল, এই পাগলরে এখন পাবনা পাঠাইয়া দেও।’

এর আগে এমপি নিক্সন চৌধুরী চরভদ্রাসনের গাজীরটেক ভায়া সদরপুর বর্ডার আরসিসি সড়কের উদ্বোধন করেন। পরে তিনি এলাকায় শীতার্ত দরিদ্র মানুষদের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন।

চরভদ্রাসন উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আজাদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক হাফেজ মো. কাউসার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার আলী মোল্যা, চর অযোধ্যা উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি এস এম ফরহাদ, যুবলীগের সভাপতি মোরাদ হোসেন ও ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: