মনোহরগঞ্জে সেই পল্লী চিকিৎসকের ফার্মেসীতে সিলগালা, ১ লক্ষ টাকা জরিমানা

আকবর হোসেনঃ কুমিল্লার মনোহরগঞ্জে “কুমিল্লায় ভুল চিকিৎসায় শিশুমৃত্যুর অভিযোগ” শীর্ষক একটি সংবাদ প্রকাশিত হওয়ার পর প্রশাসনের টনক নড়ে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু আসলাম আজ সোমবার অভিযুক্ত পল্লী চিকিৎসক সন্তোষ চন্দ্র শীলের ফার্মেসীতে যান। এসময় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটকে ফার্মেসীর কোন লাইসেন্স ও অনুমোদনের কাগজপত্র দেখাতে পারেনি ওই পল্লী চিকিৎসক। প্যাথলজি ও ইসিজি করার জন্য যারা রয়েছেন তারা কেউই দক্ষ নয় বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার। এছাড়াও সে অনুমোদনহীন ডায়াগনস্টিক সেন্টার পরিচালনা করে আসছে। এসময় লাইসেন্স বিহীন ওই পল্লী চিকিৎসককে নগদ ১ লক্ষ টাকা জরিমানা ও তার ফার্মেসীতে সিলগালা করে দেওয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট আবু আসলামকে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

ভুল চিকিৎসায় শিশু ফাইজা আক্তার তাবাস্সুমের মৃত্যুর নিউজটি নজরে আসে কুমিল্লা সিভিল সার্জন ডা. মজিবুর রহমানের। এসময় তিনি বলেন, সন্তোষ চন্দ্র শীলের ফার্সেমীটির কোন অনুমোদন নাই। ওই ডাক্তারের কোন লাইসেন্স নাই। ডায়াগনস্টিক সেন্টারেরও কোন অনুমোদন নাই।

জানা যায়, গত শুক্রবার রাতে মনোহরগঞ্জ উপজেলার লক্ষণপুর বাজারে ভুল চিকিৎসায় ৭ মাস বয়সী শিশু ফাইজা আক্তার তাবাস্সুম মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে তার স্বজনরা। নিহত শিশুটি উপজেলার লক্ষণপুর ইউনিয়নের মড়হ ভাটকোর গ্রামের ফারুকের মেয়ে। শিশুটি ঠান্ডা জনিত রোগাক্রান্ত হয়ে পড়লে গত বৃহস্পতিবার লক্ষণপুর বাজারে মনোরমা ফার্মেসীতে চিকিৎসার জন্য আনা হয়। ফার্মেসীর পরিচালক পল্লী চিকিৎসক সন্তোষ চন্দ্র শীলের ছেলে সঞ্জয় কুমার শীল কর্তৃক চিকিৎসা দেয়া হয় ওই শিশুকে। এ সময় সঞ্জয় কুমার শীল শিশুর শরীরের জন্য ক্ষতিকর একটি ইনজেকশন পুশ করে এবং আরো ৪টি ইনজেকশন পুশ করার পরামর্শ দেয়। শুক্রবার সকালে আরেকটি ইনজেকশন দেয়া হয় শিশু তাবাস্সুমকে। এরপর থেকেই অসুস্থতা বাড়তে থাকে তার। শিশুর অবস্থা সঙ্কটাপন্ন দেখে সন্তোষ চন্দ্র শীল ও তার ছেলে সঞ্জয় কুমার শীলের সাথে যোগাযোগ করলে বাকী ৩টি ইনজেকশন সরিয়ে ফেলার জন্য এবং পুনরায় শিশুটিকে নিয়ে আসার জন্য বলে তারা এবং ওইদিন সন্ধ্যায় আবার নিয়ে আসে মনোরমা ফার্মেসীতে। এ সময় শিশুর স্বজনদের সাথে চিকিৎসকের বাক বিতন্ড হয়। এক পর্যায়ে ক্ষতিকর ইনজেকশনগুলো সরিয়ে ফেলে সঞ্জয় কুমার শীল। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য লাকসাম নিয়ে যাওয়ার সময় পথে মারা যায় শিশু ফাইজা আক্তার তাবাস্সুম। এ ঘটনায় শিশুর মা জানায় ভুল চিকিৎসার তার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। এরপর শনিবার সকালে মনোরমা ফার্মেসীতে তালা লাগিয়ে দেয় ক্ষুব্ধ স্থানীয় এলাকাবাসী। উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে ওই চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় কমল নামে এক ব্যক্তি মারা যায়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আবু আসলাম জানান, উপজেলার প্রত্যেকটি বাজারে ভুয়া ডাক্তার ও অনুমোদনহীন ফার্মেসীগুলোতে অভিযান পরিচালনা করা হবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ