মহানবী (সা.) ও ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করায় ময়মনসিংহে শরিয়ত সরকার (৩৫) নামের এক বয়াতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (১১ জানুয়ারি) ভোরে জেলার ভালুকা উপজেলার বাশিল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। রবিবার (১২ জানুয়ারি) তাকে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়। তিনি মির্জাপুর উপজেলার জামুর্কী ইউনিয়নের আগধল্যা গ্রামের পবন মিয়ার ছেলে। মামলার তদন্তকারী মির্জাপুর থানার এসআই মিজানুর রহমান জানান, শনিবার (১১ জানুয়ারি) ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হয়। টাঙ্গাইলের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলি আদালতের (মির্জাপুর) বিচারক মো. আকরামুল ইসলাম তার তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বিজ্ঞাপন

মির্জাপুর থানার ওসি সায়েদুর রহমান বলেন, জামুর্কী ইউনিয়নের আগধল্যা গ্রামের শওকত আলীর ছেলে মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মির্জাপুর থানায় শরিয়ত বয়াতির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। এজাহারে অভিযোগ করা হয়, শরিয়ত সরকার ২০১৯ সালের ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা জেলার ধামরাই থানার রোহারটেক এলাকায় পালাগানের একটি অনুষ্ঠানে মহানবী (সা.), মসজিদের ইমাম ও ইসলামের নানা বিষয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। পরে তাকে গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে ফুঁসে উঠে স্থানীয় মুসলিম জনতা। তারা মানববন্ধন ও সমাবেশ করেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মাইন উদ্দিন জানান, শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) রাত ৩টার দিকে মির্জাপুর থানার এসআই মিজানুর রহমান ও ভালুকা থানার এসআই মো. মুরাদ হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বাসিল গ্রামের একটি গানের আসর থেকে বয়াতিকে গ্রেফতার করে। পরে রাতেই তাকে মির্জাপুর থানায় নিয়ে যায় দায়িত্বরত পুলিশের দল। গানের আসরে মহানবী হযরত মুহম্মদকে (সা.) নিয়ে কটূক্তি করায় বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) মির্জাপুর থানায় একটি মামলা (নম্বর-১০) দায়ের করা হয়।

মামলার বাদী মির্জাপুর উপজেলার আগধল্যা দারুসসুন্না ফোরকানিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রধানশিক্ষক মাওলানা মো. ফরিদুল ইসলাম বলেন, ‘বাউলশিল্পী শরিয়ত সরকার তার গানে মহানবী ও ইসলাম নিয়ে বিভিন্ন কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছেন। পরে তা ইউটিউবের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়। বিষয়টি এলাকার মুসল্লিদের নজরে আসে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে আমি বাদী হয়ে মামলা দায়ের করি। এ ঘটনায় আমরা মুসল্লিরা মারাত্মকভাবে আহত ও মর্মাহত হয়েছি। এজন্য তার কঠোর শাস্তি দাবি করছি। যেন আর কেউ ইসলামকে নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য দিতে না পারেন।