নতুন একটি ভাইরাস ধীরে ধীরে ছড়িয়ে পড়ছে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোতে। এই ভাইরাসের বাহন নিশাচর বাদুড়। বাদুড়ের বহন করা ভাইরাসটির নামকরণ করা হয়েছে নিপা ভাইরাস। নিপা আক্রান্তদের চিকিৎসায় এখনো কোনো ওষুধ কিংবা টিকা উদ্ভাবন না হওয়ায় এতে মৃত্যুর হার ৪০ থেকে ৯০ শতাংশ। বাংলাদেশে নিপা ভাইরাস প্রথম শনাক্ত করা হয় ২০০১ সালে। এরপর ২০১১ সাল থেকে দেশের উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গে নিপা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে মারা যান ১৪ জন।

বিজ্ঞাপন

সোমবার (৯ ডিসেম্বর) সিঙ্গাপুরে নিপা ভাইরাস বিষয়ক এক সম্মেলনে সতর্ক করে এ তথ্য জানান কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনস (সিইপিআই) প্রধান নির্বাহী রিচার্ড হ্যাচেট। তিনি বলেন, নিপা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব এখনো পর্যন্ত দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সীমাবদ্ধ, তবে এটি মারাত্মক মহামারির রূপ নিতে পারে। কারণ এই ভাইরাসের বাহক টেরোপাস (ফ্লাইং ফক্স নামেও পরিচিত) বাদুড় গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এবং উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলে বেশি দেখা যায়, যেখানে প্রায় ২০ লাখের বেশি মানুষের বসবাস।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: