ঈদ আমাদের জন্য প্রতিবার আনন্দের বার্তা নিয়ে এলেও এবারের ঈদ হতে যাচ্ছে ভিন্ন রকম। বাংলাদেশ কাঁপছে করোনার থাবায়। পঞ্চম দফায় বাড়ানো হয়েছে সাধারণ ছুটি। বলা হয়েছে এবারের ঈদে কেউ কর্মস্থল ত্যাগ করতে পারবে না। মার্কেট ও শপিংমল সীমিত আকারে খুললেও বন্ধ থাকবে গণপরিবহন। এছাড়া ইতোমধ্যেই সীমিত আকারে খুলে দেয়া হয়েছে গার্মেন্টস, আরো কারখানা খুলে দেয়ার পরিকল্পনা হচ্ছে। তবে শ্রমিকরা বাড়ি যেতেন পারবেন না, ঈদ করতে হবে কর্মস্থলেই। সোমবার (৪ মে) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের জারি করা এক আদেশে এসব কথা বলা হয়।

বিজ্ঞাপন

আদেশে বলা হয়, ছুটিকালীন জনসাধারণ ও সকল কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের জারি করা নির্দেশমালা কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে। জরুরি পরিষেবা যেমন- বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ও অন্যান্য জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, ডাক সেবা এবং এ সংশ্লিষ্ট সেবা কাজে নিয়োজিত যানবাহন ও কর্মীরা এ ছুটির বাইরে থাকবেন। আগে ডাক সেবা ছুটির আওতামুক্ত ছিল না। এটি নতুন করে যুক্ত হয়েছে। ছুটি বাড়ানোর আদেশে আরো বলা হয়, সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন অফিস প্রয়োজন অনুসারে খোলা রাখবে। সেই সঙ্গে তারা তাদের অধিক্ষেত্রের কার্যাবলী পরিচালনার জন্য সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা জারি করবে।