মুরাদনগরে বিরল রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের পাচঁজন

মুরাদনগর সংবাদদাতাঃ কুমিল্লা মুরাদনগর উপজেলায় বিরল রোগে আক্রান্ত একই পরিবারের পাচঁজন অর্থাভাবে সুচিকিৎসা করাতে পারছেন না।

উপজেলার রামচন্দ্রপুর উত্তর ইউনিয়নের আলালেরকান্দি গ্রামের হতদরিদ্র দিনমজুর দুলাল মিয়ার পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট পরিবারের পাচঁজনই বিরল রোগে আক্রান্ত।

২০১৩ সালে দুলাল মিয়া(৪৭) নিজে প্রথমে পাকস্থলীতে পাথরে আক্রান্ত হয়। পরে একে একে গলায় থাইরক্স, মেরুদন্ডের হাড়ঁ ক্ষয় ও এক হাত প্যারালাইসেসে আক্রান্ত হয়, যাতে করে যে কোন সময় লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হতে পারে। স্ত্রী মলেকা বেগম(৩৮) গত তিন বছরে তিনবার ব্রেইন স্ট্রকে আক্রান্ত, মা মকবুরের নেছা(৫৮) গত ১৫ বছর থেকে হৃদরোগে আক্রান্ত, ভাই সোহেল রানা(৩৮) প্রতিবন্ধি হলেও জোটেনি প্রতিবন্ধি কার্ড ও ছেলে শান্ত(১৫) ২০১৫ সাল থেকে গলার চুয়ালে টিউমারে আক্রান্ত। পিতা সফিকুল ইসলাম সবুজ ২০১৭ সালে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে অর্থাভাবে চিকিৎসা না করতে পারায় মৃত্যু হয়। রিক্সা চালিয়ে সংসার ও পরিবারের সকল সদস্যদেরে চিকিৎসা চালাতেন তিনি। চিকিৎসার জন্য কিছুদিন পূর্বে মাথা গোছানোর একমাত্র সম্পদ বাড়িটি বিক্রি করে বর্তমানে অন্নের বাড়িতে বসবাস করছেন।

দুলাল মিয়া কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, আমিই পরিবারের মধ্যে একমাত্র উপার্জনকারী। নিজে এখন জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ায় এখন আর উপার্জন করতে পারিনা। দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা করে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়েছি। বর্তমানে রোগাক্রান্ত সন্তান ও আমার রোগাক্রান্ত পরিবারদের নিয়ে মানবত জীবনযাপন করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান মনের একজন মানুষ। তিনি মুক্তা মনিকে যে ভাবে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন তার জন্যও আমি কৃতজ্ঞ। তিনি তার পরিবারদের বাঁচার আকুতি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীসহ দেশের সকল আপামর হৃদয়বান ব্যক্তিদের কাছে সাহায্য কামনা করেছেন। তার আকুতি আপনাদের একজন ভাই হিসেবে যতটুকু সম্ভব আমাকে সহায়তা-সহমর্মিতা করে আমার অপারেশসহ পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসার সহায়তা করবেন। প্রয়োজনে যোগাযোগ : ০১৭৩৫-৪১১০০১ ও ০১৮৬৯৬৮১২৮৯।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন:

ভালো লাগলে শেয়ার করুনঃ