জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে অভাবের তাড়নায় ১১ দিন বয়সী এক শিশুকে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বুধবার (৩০ অক্টোবর) উপজেলার মাজালিয়া পশ্চিম পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

শিশুর মা নাজমা বেগম বলেন, ঢাকার সায়েদাবাদে গার্মেন্টস কর্মী নাজমা (২৩)এর সাথে মিরাজ আলী নামক এক ব্যাক্তির প্রেম অতঃপর বিয়ে হয়। বিয়ের পর ৬ মাসের অন্তঃসত্ত্বা নাজমাকে রেখে স্বামী মিরাজ আলী মারা যান। অন্তঃসত্ত্বা নাজমা জীবন বাঁচাতে করতে পথে নেমে আসে। এক পর্যায়ে গত ২০ অক্টোবর জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে নাজমা একটি কন্যা শিশু প্রসব করেন। তার নাম রাখা হয় বিবি আয়শা।

এ সময় সরিষাবাড়ী উপজেলার ডোয়াইল ইউনিয়নের মাজালিয়া পশ্চিম পাড়া গ্রামের আব্দুল হানিফের স্ত্রী ফাহিমা বেগমের জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা নেয়ার সময় অসহায় নাজমার পরিচয় হয়। দারিদ্রতার কষাঘাতে জর্জরিত নাজমার আসহায়ত্বের কথা বিবেচনা করে গত ২৭ অক্টোবর ফাহিমা বেগমের বাড়ীতে তার আশ্রয় হয়।

অসুস্থ নাজমার তার কোন আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় এবং দারিদ্রতার কষাঘাতে জর্জরিত ১১দিন বয়সী কন্যা শিশুর ভরণ পোষণ দুঃসাধ্য হয়ে উঠে। অভাবের তাড়নায় তিনি দুগ্ধশিশু বিক্রির প্রস্তাব দিলে সরিষাবাড়ী উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের মালিপাড়া গ্রামের সাইফুল ইসলামের নিঃসন্তান দম্পত্তি মারুফা ইসলামের কাছে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে কিনে নেন। আশ্রিতা ফাহিমার বাড়ীতে বুধবার দুপুর ১২ টার দিকে ১১ দিন বয়সী কন্যা শিশুর মাতা নাজমা বেগম নিঃসন্তান দম্পত্তি মারুফা ইসলামের হাতে নাড়ি ছেড়া ধন বিবি আয়শাকে তুলে দেন বলে জানা গেছে।

জানতে চাইলে নিঃসন্তান দম্পত্তি মারুফা ইসলাম বলেন, শিশু বিবি আয়শার মাতা নাজমাকে ২০ হাজার টাকার বিনিময়ে আশ্রিতা ফাহিমার বাড়ী থেকে নিয়ে এসেছি।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য মন্টু মিয়া বলেন, সহায় সম্বলহীন নাজমা নামে এক মহিলার ১১ দিনের শিশুটি লালন পালন ও নিজের জীবনযাপনের এবং চিকিৎসার কোন অবলম্বন না থাকায় শিশুটি ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে চলে গেছে। এ বিষয়ে সরিষাবাড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ মাজেদুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।