হোমনায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে যুবক খুন

তপন সরকারঃ কুমিল্লার হোমনায় ব্যাডমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে মো. রুবেল মিয়া(২৪) নামের এক যুবক খুন হয়েছে। সে উপজেলার দড়িচর গ্রামের মো. ওয়ারিশ মিয়ার ছেলে। গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার ঘাগুটিয়া ইউনিয়নের দড়িচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আরো অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।আহতদের হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে । তারা হলো- নিহতের ভাই রনি, ও জনি, একই গ্রামের আবদুল করিমের ছেলে মো. জুয়েল রানা(২৯) ও তার ভাই মাসুদ রানা(৩৪), সোহাগ রানা ও তার মা সামিনা মেম্বার,মোস্তফা মিয়ার ছেলে মাহফুজ(৩০), হামিদ মিয়ার ছেলে মনিরুজামান রিপন, ছাদির আলীর ছেলে নবী নোয়াজ, সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে হাবিবুর রহমান মুকুল ।

নিহত পারিবারিক ও থানা সূত্রে জানাগেছে ,শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলার দড়িচর মাঠে ব্যাডমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে রুবেলের সাথে একই গ্রামের মালেক আফসারীর ছেলে মুন্না আফসারীর কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মুন্না ধারাল অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে এতে রুবেল পেটে আঘাত প্রাপ্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিতে চাইলে তাদেরকেও নির্মমভাবে কুপিয়ে ১০ জনকে আহত করে। পরে ঘটনাস্থলে রুবেলের মৃত্যু নিশ্চিত হলে পালিয়ে যাবার চেস্টা করে। এসময় জনতা মালেক আফসারী ও তার ছেলে জনি আফসারীকে আটক করে পুলিশের হাতে সোপর্দ করে। পরে রাত সাড়ে ১০ টার দিকে রুবেলকে হোমনা হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করে । এ সময় মুন্না আফসারী পালিয়ে যায়।পরে অভিযান চালিয়ে ইকবাল মিয়া ও হুমায়ুন কবির নামের আরো ২ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ।

গতকাল শনিবার সকালে রুবেল মিয়ার পিতা ওয়ারিশ মিয়া বাদী হয়ে ১৬ জনকে আসামী করে হোমনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় ইউনিয়ন জাপা নেতা মালেক আফসারী, তারা ছেলে জনি ও ইব্রাহিম মেম্বারের ছেলে ইকবাল ও আঃ বাতেরে ছেলে মো. হুমাযুন ৪ জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে । এ সময় নিহত রুবেলের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছে পুলিশ। এ দিকে নিহত রুবেলের পিতা ওয়ারিশ বলেন, মালেক আফসারী চেয়ারম্যানি নির্বাচন করছিল। আমার ছেলে নাকি তার নির্বাচন না করে গনি চেয়ারম্যানের পক্ষে নির্বাচন করছে সে আক্রোশে খেলার ওসিলায় আমার ছেলেকে খুন করছে । আমি এর উপযুক্ত বিচার চাই ।

এ বিষয়ে হোমনা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রসুল আহমদ নিজামী বলেন, শুক্রবার রাতে দড়িচর মাঠে ব্যাডমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে নিহত রুবেলের সাথে মালেক আফসারীর ছেলে মুন্না আফসারীর কথা কাটা কাটির এক পর্যায়ে মুন্নার ফোন পেয়ে মালেক আফসারী দলবল নিয়ে এসে এলো পাথারী কুপাতে থাকে এতে রুবেলের পেটে আঘাত প্রাপ্ত হলে স্থানীয়রা রুবেলকে হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার রুবেলকে মৃত ঘোষনা করেন । নিহত রুবেলের পিতা ওয়ারিশ মিয়া বাদী হয়ে ১৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে । এ ঘটনায় মালেক আফসারী ও তার ছেলে জনি আফসারি সহ ৪ জনকে গ্রেফতার করতে পেরেছি বাকিরা পলাতক রয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: