নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় মাথার খুলি ও দেহের কঙ্কালসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে পুলিশ।

শনিবার দুপুরে তাদের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় মামলা করা হয়। এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যায় উপজেলার উচিৎপুরা বেলায়েত হোসেন ডিগ্রি কলেজের সামনে থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন- ময়মনসিংহের কোতোয়ালি থানার নয়াপাড়া এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে সোহেল মিয়া (২৬), ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট থানার বাউসা এলাকার আমির হোসেনের ছেলে আব্দুল জলিল (২৫), জামালপুরের সিহাটা বাজার বাকাইল এলাকার আনছার আলীর ছেলে সুমন মিয়া (২০) ও মৌলবীবাজারের কুলাউড়া থানার দক্ষিণ ইসলামাবাদের নাছির দর্জির ছেলে রাহেল (২০)।

আড়াইহাজার থানা পুলিশের ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, উপজেলার উচিৎপুরা থেকে আড়াইহাজার বাজারে যাওয়ার পথে কতিপয় লোকের গতিবিধি সন্দেহ হলে তাদের গতিরোধ করলে দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় চারজনকে গ্রেফতার করা হয়। এদের মধ্যে সোহেল মিয়ার হাতে থাকা একটি ব্যাগে থাকা চারটি মৃত মানুষের কঙ্কালের মাথার খুলি ও কঙ্কালের বিভিন্ন অঙ্গের ১৫০টি হাড়ি এবং আব্দুল জলিলের কাছে থাকা একটি ব্যাগে থাকা মৃত মানুষের কঙ্কালের ২৯৬টি হাড়সহ মোট ৪৫০টি হাড় উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতাররা বিভিন্ন এলাকার কবরস্থান থেকে মৃত মানুষের মাথার খুলি ও মৃত মানুষের হাড় চুরি করে রাহেল মিয়ার কাছে বিক্রি করে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে, সেলিম মিয়ার কাছে প্রতি মৃত মানুষের মাথার খুলি ও হাড় ৫ হাজার টাকা করে বিক্রি করে। রাহেল মিয়া ঢাকার মিডফোর্ড হাসপাতালের এক ডাক্তারের কাছে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে। তাদের বিরুদ্ধে আড়াইহাজার থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: