ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট উৎপাদিত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন আগামী ২১ থেকে ২৫ জানুয়ারির মধ্যে দেশে আসবে। এর দুই দিন পর বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালসের ওয়ার হাউস থেকে তা বিভিন্ন জেলায় পাঠানো হবে। প্রথম ধাপে ভ্যাকসিন পাবেন দেশের ৫০ লাখ মানুষ।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে করোনার ভ্যাকসিন বিষয়ে এক ব্রিফিংয়ে অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম এ তথ্য জানান।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সায়েন্টিফিক অ্যাডভাইজরি গ্রুপের নির্দেশনা অনুসারে প্রথম মাসে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে যারা ভ্যাকসিন পাবেন তাদের তালিকা তৈরি করেছেন দেশের বিশেষজ্ঞরা। ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে সরকারের অগ্রাধিকার তালিকায় রয়েছেন সম্মুখসারির যোদ্ধারা। এছাড়া প্রথম দয়ায় ভ্যাকসিন দিতে বিভিন্ন খাতের ব্যক্তিদের তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

ভ্যাকসিনের জন্য নিবন্ধন ২৬ জানুয়ারি থেকে

ব্রিফিংয়ে বলা হয়, ভ্যাকসিন পাওয়ার ক্ষেত্রে সরকারের অগ্রাধিকার তালিকার বাইরের সাধারণ মানুষকে নিবন্ধন করতে হবে। ভ্যাকসিনের জন্য নিবন্ধন আগামী ২৬ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে। এ নিবন্ধন করা যাবে অনলাইনেও। তবে অনলাইনটি এখনো সম্পন্ন হয়নি। জেলা-উপজেলায় ভ্যাকসিন সেন্টারেও এ নিবন্ধন করা যাবে।

নিবন্ধনের জন্য প্রয়োজন হবে জাতীয় পরিচয়পত্র। তাছাড়া নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্ভব নয়। কারণ জাতীয় পরিচয়পত্র ভ্যাকসিন গ্রহণকারীর বয়স যাচাই করা হবে। একইসঙ্গে ভাকসিন নেয়ার পর সনদ দেয়া হবে।

জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য আলাদা টিম গঠন করা হচ্ছে। এছাড়াও কয়েকটি বিশেষায়িত হাসপাতালে ভ্যাকসিন পাওয়া যাবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: