ফেনীতে পারিবারিক কলহের জেরে ঘুমন্ত অবস্থায় থাকা স্বামী কাউসার আলম তৈমুরে (৪৫) শরীরে তার স্ত্রী গরম পানি ঢেলে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার ৬দিন পর রবিবার বেলা সাড়ে ১১.৩০ মিনিটে রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ইউনিটে তার মৃত্যু হয়েছে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তৈমুরের স্ত্রী খাদিজা বিনতে শামস রুপাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তৈমুর ফেনী শহরের শহীদ সেলিনা পারভিন সড়কের (নাজির রোডের) আবু তৈয়ব চৌধুরীর ছেলে ও ফেনীর ফ্রেন্ডশীপ ক্রিকেট ক্লাবের প্রতিভাবন সাবেক খেলোয়াড়।

নিহতের ছোট ভাই তানজুর চৌধুরী এই ব্যাপারে ফেনী মডেল থানায় ১৬ এপ্রিল মামলা দায়ের করেন। তিনি জানান, দীর্ঘ দিন ধরে তার ভাই ও ভাবীর সাথে ঝগড়া বিবাদ চলে আসছিল। ১১ এপ্রিল সোমবার সকাল ৬টার দিকে তার ভাইর চিৎকার শুনে তারা ছুটে গিয়ে দেখতে পায় গরম পানিতে তার ভাই শরীর ঝলসে দেয়া হয়েছে। সেখান থেকে তাকে প্রথমে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ও পরে চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ঢাকা শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ণ ইউনিটের আইসিইউতে তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রবিবার তার মৃত্যু হয়।

এদিকে মৃত্যুর আগে তৈমুরের লেখা ও স্বাক্ষর করা জবানবন্দীতে তিনি জানান, তার এই অবস্থার জন্য তার স্ত্রী জড়িত। সে লিখেছে সে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ঘুমন্ত অবস্থায় গরম পানি ঢেলে দিয়েছে। লিখার নীচে তৈমুরের স্বাক্ষর ও টিপসহি রয়েছে।

তৈমুরের শরীরে গরম পানি ঢেলে ঝলসে দেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তার স্ত্রী রুপা। গ্রেফতারের আগে রুপা জানান, তাকে ফাঁসাতে অন্য কেউ এ চক্রান্ত করছে। সেদিন সেহরী খেয়ে তিনি ঘুমিয়ে ছিলেন। তার গায়ে কিভাবে গরম পানি পড়েছে তিনি তা জানেননা। ফেনী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নিজাম উদ্দিন জানান, অভিযোগের প্রেক্ষিতে শনিবার সন্ধ্যায় রুপাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: