হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে স্বাস্থ্যকর্মীকে ঘুষ না দেওয়ায় চার বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। জানা গেছে, ফুসফুসজনিত রোগ নিয়ে শিশুটিকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। স্বাস্থ্যকর্মীরা ঘুষ না পেয়ে অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। খবর নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের। শিশুর পরিবার বলছে, ১০০ রুপি ঘুষ চেয়ে না পাওয়ায় শিশুটির অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেন হাসপাতালের এক স্বাস্থ্যকর্মী। এতে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) কিছুক্ষণের মধ্যেই সে মারা যায়। ভারতের হায়দরাবাদে একটি হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে।

দেশটির একটি সংবাদমাধ্যম বলছে, মৃত শিশুটির নাম মোহাম্মদ খাজা। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ছিল সে। ফুসফুসে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল। প্রথমে শিশুটিকে হায়দরাবাদের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে পরিস্থিতির অবনতি হলে হায়দরাবাদের নিলোফার হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। খবর নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের। ভর্তি হওয়ার পর ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে রাখা হয় ওই শিশুকে। তার বাবা মোহাম্মদ আজম অভিযোগ করে বলেছেন, খাজার অক্সিজেনের প্রয়োজন ছিল। অক্সিজেন দেওয়ার জন্য ১০০ রুপি ঘুষ চান সুভাষ নামের একজন স্বাস্থ্যকর্মী। ঘুষ দিতে অস্বীকার করেন তারা। এ নিয়ে বচসা হলে অক্সিজেন না দিয়েই আইসিইউ ছেড়ে চলে যায় সুভাষ।

অক্সিজেনের অভাবে হাসপাতালের শয্যাতেই মারা যায় চার বছরের শিশু। এরপর হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ দেখান আজম ও তার পরিবারের সদস্যরা। খবর পেয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে গাফিলতির অভিযোগ তুলেছেন আজম ও তার পরিবার। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অভিযোগ পেয়েই ওই স্বাস্থ্যকর্মীকে বরখাস্ত করেছে। কর্তৃপক্ষের দাবি, হাসপাতালের পক্ষ থেকে ওই কর্মীকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। এজেন্সির মাধ্যমে কাজ করতে এসেছিলেন তিনি। এই ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: