ছাত্রদলকে অছাত্রদের সংগঠন বলে মন্তব্য করেছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। শনিবার (১৩ মার্চ) বিকেলে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কর্মী সভায় সভাপতির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি।

কর্মী সভায় বক্তৃতা করেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যও। তবে এতে সিলেটের কোনো ছাত্রলীগ নেতা বক্তৃতা করেননি।

আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ‘বাংলাদেশ ছাত্রদলের কোনো গঠনতন্ত্র নেই। এছাড়া তাদের বেশিরভাগ নেতাকর্মী অছাত্র। সব অছাত্র আর বয়স্ক লোকদের দিয়ে কমিটি গঠন করা হয়েছে। সম্প্রতি তারা জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ওপর গুপ্ত হামলা চালিয়েছে। তাই এদের (ছাত্রদলকে) প্রতিহত করতে হবে।’

ছাত্রলীগের মধ্যে গ্রুপিংকে প্রশ্রয় দেয়া যাবে না উল্লেখ করে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, ‘নিজেদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করার প্রয়োজন নেই। আমি দেখেছি অনেকেই আমার এবং সাধারণ সম্পাদক লেখকের ছবি দিয়ে পৃথক ব্যানার-ফেস্টুন বানিয়ে টানিয়েছেন। এসব করবেন না। এসব গ্রুপিং সৃষ্টি করে। কখনই এমন করবেন না, গ্রুপিংকে প্রশ্রয় দেবেন না- আমরা সবাই মিলেমিশে থাকতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নে দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু বঙ্গবন্ধুকন্যা, দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এমন উন্নয়নের বিরোধিতা করছে জামায়াত-শিবিরের প্রেতাত্মারা। তারা আল জাজিরার মাধ্যমে প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে। দেশের মানুষ বুঝে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই। সেজন্য দেশের মানুষ তাদের প্রতিহত করছে। ভবিষ্যতেও করবে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্বরত্ন উল্লেখ করে জয় আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশরত্ন থেকে বিশ্বরত্ন হিসেবে খ্যাতি লাভ করেছেন। এজন্য বাংলাদেশে ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশ্বরত্ন শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেয়া হবে।

সিলেট জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে জয় আরও বলেন, সিলেট জেলা ও মহানগরে সবাই সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হতে পারবেন না। তবে সকলেই এ দুই পদের যোগ্য। এজন্য যারাই নেতৃত্বে আসুক সবাই মিলেমিশে কাজ করতে হবে।

কর্মী সভায় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে অনুমোদন দেয়া হবে।

তিনি বলেন, আপনারা সিলেট ছাত্রলীগ আমাদের অনেক দিয়েছেন। এখন আমাদের দেয়ার পালা। দ্রুত সময়ের মধ্যে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি দেয়া হবে। আমরা যে কমিটি দেব সেই কমিটির নেতৃত্বে আপনারা কাজ করবেন।

প্রসঙ্গত, প্রায় ছয় বছর পর আজ সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমিটি গঠনের উদ্দেশে ২০১৫ সালের ৪ জুলাই সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। জেলার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল ২০১৪ সালের ৮ সেপ্টেম্বর।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: