জিয়াউর রহমান অস্ত্র ঠেকিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনতাই করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন। তিনি বলেন, ‘রাস্তায় যারা অস্ত্র ঠেকিয়ে জনগণের মালামাল ছিনতাই করে তাদের ছিনতাইকারী বলা হয়। এদের অনেককেই ছিঁচকে ছিনতাইকারী বলা হয়। যিনি রাষ্ট্রের গর্ব সেনাবাহিনীর কতিপয় সহকর্মীকে বিভ্রান্ত করে সশস্ত্র অবস্থায় রাতের অন্ধকারে বঙ্গভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতি বিচারপতি সায়েমের বিছানায় বেয়াদবের মতো পা তুলে দিয়ে, অস্ত্র ঠেকিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা ছিনতাই করেছেন, নিঃসন্দেহে সেই জিয়াউর রহমানকে ছিনতাইকারী বলা যায়। ‘

মঙ্গলবার (৩১ মে) লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বক্তব্য প্রদানকালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সশস্ত্র বাহিনী দেশের জাতীয় সম্পদ, আমাদের গর্ব ও অহংকারের প্রতিষ্ঠান। তাদের ওপর দেশের প্রতি ইঞ্চি মাটির সার্বভৌমত্ব রক্ষার পবিত্র দায়িত্ব অর্পিত। এ জন্য জনগণের ট্যাক্সের টাকায় সশস্ত্র বাহিনীর হাতে অস্ত্র তুলে দেওয়া হয়েছে এবং আইনসংগতভাবে অস্ত্র ব্যবহারের সুনির্দিষ্ট নীতিমালা রয়েছে, আর্মি রুলস রয়েছে। প্রত্যেক দেশপ্রেমিক সেনা সদস্য আর্মি রুলস এবং পবিত্র সংবিধান মান্য করতে শপথবদ্ধ। সেনাপ্রধান হিসেবে জিয়াউর রহমান শপথ ভঙ্গ করে আর্মি রুলস ও সংবিধান অমান্য করে কতিপয় সহকর্মী সেনা সদস্যকে বিভ্রান্ত করে আইনি অস্ত্রের বেআইনি ব্যবহার করে মহামান্য রাষ্ট্রপতির নিকট থেকে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ছিনতাই করেছেন। তার এবং তার সহযাত্রী ছিনতাইকারীদের বিচার হওয়া উচিত। ‘

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যক্ষ মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলন উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আলহাজ গোলাম ফারুক পিঙ্কু। স্থানীয় রায়পুর মার্চেন্ট একাডেমি মাঠে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় এমপি নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, উপজেলা সাধারণ সম্পাদক হাজি ইসমাইল খোকন প্রমুখ।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: