ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার লাউর ফতেপুর ইউনিয়নের আহাম্মদপুর গ্রামে এবার ‘জিলাপী’ বিতরণ নিয়ে হেবজু মিয়া সরকার (৫৫) নামে এক ব্যক্তি লাঠির আঘাতে নিহত হয়েছেন। আজ দুপুরে জুম্মার নামাজ শেষে জিলাপী বিতরণের সময় এ মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে। পুলিশ লাশ উদ্ধার করেছে।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার লাউর ফতেপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফারুক সরকারের রোগমুক্তি কামনাসহ তাঁর (চেয়ারম্যান) পিতার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গ্রামের সরকার বাড়ির মসজিদে আজ জুম্মার নামাজের সময় বিশেষ দোয়ার আয়োজন করা হয়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দোয়া শেষে ‘জিলাপী’ বিতরণের সময় বিশৃংখলা শুরু হয়। এসময় জিলাপী নিয়ে সরকার বাড়ির মনির হোসেন সরকারের ছেলে হেবজু মিয়া সরকারের সঙ্গে তারই চাচাতো ভাই মামুন সরকারের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায় মামুন তার চাচাতো ভাইকে লাঠি দিয়ে আঘাত করলে হেবজু মাঠিতে লুটিয়ে পড়ে। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হেবজু সরকারকে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। কর্তব্যরত মেডিক্যাল অফিসার ডা. ইখতিয়ার উদ্দিন তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

লাউর ফতেপুর ইউপি চেয়ারম্যান গুরুতর অসুস্থ ফারুক সরকার মুঠোফোনে বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। মূলত আমার বাবার মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে মসজিদে আজ দোয়ার আয়োজন করা হয়। কিন্তু জিলাপী বিতরণ করতে গিয়ে এমন একটি মৃত্যুর ঘটনা ঘটল। যা খুবই দুঃখজনক।

নবীনগর থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) রুহুল আমীন বলেন, লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনও মামলা হয়নি। তবে বিষয়টি খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

সূত্রঃ কালের কণ্ঠ

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: