ডেস্ক রিপোর্টঃ সাংবাদিক ও সাধারণ মানুষের উপর পুলিশের হামলা কোন ভাবেই থামছে না। পেশাগত দায়িত্ব পালনে গিয়ে সাংবাদিকরা অনেক সময় পুলিশি বর্বরতার শিকার হন। যা এখনও থেমে নেই, দিনকে দিন পুলিশের এ নারকীয় নির্যাতন বেড়েই চলেছে। সাধারণ মানুষের ট্যাক্সের টাকায় বেতন পাওয়া এই পুলিশ বাহিনী জনগণের বন্ধু হবে কবে? এ প্রশ্নটা এখন ঘুরছে অনেকের মনে।

গত সোমবার (২৩ এপ্রিল) বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে দুপুরে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি। বিক্ষোভের সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে বেসরকারি বাংলা টেলিভিশনের রিপোর্টার আরমান কায়সার ও ক্যামেরাপারসন মানিকের উপর চড়াও হয় মিতিঝিল জোনের ডিসি আনোয়ার হোসেন। প্রকাশ্যে রাস্তার মধ্যে ওই গণমাধ্যমকর্মীদের জামার কলার ধরে টানা-হেচড়া করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত জোর করে তাদেরকে পুলিশ ভ্যানে তুলে সংশ্লিষ্ট থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

এমন দৃশ্য দেখে সেখানে উপস্থিত সাধারণ মানুষের ভাষ্য, ‘আমরা এ কোন অথর্ব সমাজে বাস করছি। যে দেশের পুলিশের কাজ সম্মানিত নাগরিকসহ সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা দেয়া। সেই পুলিশের কাছে আজ গণমাধ্যম কর্মীদেরই এই অবস্থা, তাহলে আমাদের মতো সাধারণ মানুষের অবস্থান কোথায়?’

সোমবার পুলিশের ওই আচণের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশ পাওয়ার সাথে সাথেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীকে নিয়ে সব শ্রেণি-পেশার মানুষ নানান ধরণের কটুক্তি করেন।

আজ মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেছে সাংবাদিকরা। মানববন্ধন শেষে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে একটি স্মারকলিপি ডিএমপি কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বরাবর দেয়া হয়।

এ সময় ডিসি (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান ঘটনাটি অনাকাঙ্ক্ষিত ও দুঃখজনক বলে অভিহিত করে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।

এ বিষয়ে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সভাপতি সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘বেশ কিছুদিন আগে আমি পুলিশ কমিশনারের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম, সাধারণ মানুষ পুলিশের প্রতি আশ্বস্ত হবে কিভাবে? তখন কমিশনার বলেছিলেন, আমরা একটি উদ্যোগ নিয়েছি। বিভিন্ন মহল্লায় গিয়ে আমরা সাধারণ মানুষের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করবো। যাতে করে সাধারণ মানুষ পুলিশের সঙ্গে মিশতে পারে।’

‘তবে পুলিশের গতকালের ঘটনায় আমি হতাশ। দেশের মানুষ নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে পুলিশ কখনো বন্ধু হতে পারবে না। কারণ গত কালকের ঘটনার ছবি দেখে বোঝা যায় পুলিশ কতটা আগ্রসী। একজন ডিসি লেবেলের পুলিশ কিভাবে এমন আচরণ করতে পারে! পুরো পুলিশ বাহিনীর কাছে আমার প্রশ্ন?’

প্রসঙ্গত, এর আগে গত (১১ অক্টোবর ২০১৭) মানবজমিন পত্রিকার ফটোসাংবাদিক নাসিরের উপর পুলিশ হামলা চালায়। তাছাড়া গত (১৩ মার্চ) বরিশালে পুলিশের বর্বরতার শিকার হয় বেসরকারি টেলিভশন চ্যানেল ডিবিসি নিউজের ক্যামেরাপার্সন সুমন হাসান।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: