ডেস্ক রিপোর্টঃ বরগুনায় স্ত্রীর সামনে প্রকাশ্যে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার অন্যতম প্রধান আসামি নয়ন বন্ড ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ভোরে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন তিনি। বরগুনার পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মারুফ হোসেন গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে নয়ন নিহত হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন রিফাতের স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। তিনি বলেন, ‘আমি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে চির কৃতজ্ঞ। তাদের কারণেই নয়ন আজ শাস্তি পেল। আয়েশা বলেন, শুধু নয়ন মরলে হবে না, প্রত্যেককে শাস্তি দিতে হবে। ঘটনার সঙ্গে যারা জড়িত এবং পরিকল্পনাকারী- সবার শাস্তি চান তিনি। এর আগে তিনি বলেছিলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমার স্বামী হত্যার বিচার চেয়েছিলাম। আমি নয়ন, রিফাত ফরাজী, রেশান ফরাজী আরও ওই জায়গায় যারা ছিল প্রত্যেকের ফাঁসি চাই।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে ভোর রাত ৪টার দিকে বরগুনা সদর থানার পুলিশ নয়ন বন্ডকে গ্রেফতারের জন্য ওই গ্রামে যায়। ওই গ্রামের খলিল মাস্টারের বাড়ির সামনে গেলে নয়ন বন্ড ও তার সহযোগীরা পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এতে ঘটনাস্থলে নয়ন নিহত হন। হামলায় বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহজাহান মিয়াসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পূর্ব বুড়িরচর গ্রামের বাসিন্দা আবদুল বারেক ও কবির হোসেনের তথ্যমতে, ভোর রাত সোয়া ৪টার দিকে তারা বেশ কিছু গুলির শব্দ শুনতে পান। এতে তাদের ঘুম ভেঙে যায়। ভোর ৫টার দিকে তারা খলিল মাস্টারের বাড়ির দরজার সামনে বাধের ঢালে এক যুবকের লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। পুলিশ তার লাশ ঘিরে রেখেছিল।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুল (বুধবার) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজ রোডে সন্ত্রাসীরা স্ত্রীর সামনেই কুপিয়ে গুরুতর জখম করে রিফাত শরীফকে। পরে বিকেলে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: