ব্রাজিলীয়ান নারী বিয়ে করে রকিব এখন আমেরিকায়

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ব্রাজিলীয়ান নারী সেওমা ভিজেহার সঙ্গে পরিচয় হয় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আব্দুর রকিবের। এরপর শুরু হয় প্রেম। প্রেমের সূত্র ধরে সাত সমুদ্র পাড়ি দিয়ে প্রেমিকের কাছে ছুটে আসেন সেওমা। এরপর স্বামী রকিবের ভিসা জটিলায় হতাশার গ্লানি নিয়ে রকিবকে ছাড়াই ব্রাজিলে ফিরতে হয় সেওমার। কিন্তু ভিসা পাওয়ার পর দু-দফায় ব্রাজিল গিয়ে বর্তমানের আব্দুর রকিব এখন পাড়ি জমিয়েছেন আমেরিকায়। এ খবর গতকাল শনিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ হয়। এনিয়ে নবীগঞ্জের সর্বত্র নানা আলোচনা চলছে।

জানা যায়, ৪৭ বছর বয়সী ব্রাজিলীয়ান সেওমা ভিজেহা একজন স্বামী পরিত্যক্তা নারী। পেশায় একজন শিক্ষিকা। তিনি ২ কন্যা ও ১ ছেলে সন্তানের জননী। ২০১৬ সালের শুরুতে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার হালিতলা (বারৈকান্দি) গ্রামের আসকান উদ্দিনের বড় ছেলে আব্দুর রকিবের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হয় ব্রাজিলীয়ান নারী সেওমার। ওই সময় রকিব মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের মাস্টার্স শেষ বর্ষের ছাত্র। ফেসবুকে সেওমার আইডিতে লাইক দেন রাকিব। সেওমাও তাকে লাইক দেন। এভাবেই শুরু। চলতে থাকে টেক্স বিনিময়। এরপর প্রায় প্রতিদিনই তাদের কথা হতো।

এক পর্যায়ে ব্রাজিলীয়ান নারী সেওমা’র সাথে প্রেমের সম্পর্কে আবদ্ধ হন আব্দুর রকিব। প্রায় নয় মাস প্রেমের সম্পর্ক চলাকালে রকিবকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন সেওমা। ২০১৬ সালের ডিসেম্বর মাসের প্রথম দিকে সেওমা ব্রাজিলে বাংলাদেশের দূতাবাসে গিয়ে ভিসা সংগ্রহ করেন। (৩১ ডিসেম্বর) হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে একটি ফ্লাইটে বাংলাদেশে আসেন সেওমা। বিমান বন্দরে তাকে স্বাগত জানান প্রেমিক আব্দুর রকিব। এরপর রকিব তার ব্রাজিলীয়ান প্রেমিকা সেওমাকে নিয়ে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের হালিতলা (বারৈকান্দি) গ্রামে নিজ বাড়িতে আসেন।

২০১৭ সালের ৩ জানুয়ারি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে পরদিন কলেজছাত্র আব্দুর রকিবের সঙ্গে বিয়ে হয় সেওমার। ফেসবুকের কল্যাণে বাংলাদেশি তরুণের প্রেমে মুগ্ধ বিদেশিনীর ছুটে আসা এবং ঘর বাঁধা নিয়ে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। আশপাশের গ্রামবাসী যেমন এই বিদেশিনী বধূকে দেখতে ভিড় জমান রকিবের বাড়িতে। ২৯ দিন হালিতলা (বারৈকান্দি) গ্রামে স্বামী রকিবের সাথে সংসার করেন। ওই বছরের (২৮ জানুয়ারি) ভিসা জটিলতার কারণে স্বামী রকিবকে না নিয়েই বাংলাদেশ থেকে চলে যান ব্রাজিলীয় নারী সেওমা ভিজেহা। এরপর থেকে রকিব এবং তার পরিবারসহ বন্ধুবান্ধবের মনে দেখা দেয় নানা প্রশ্ন। কিন্তু সকল সন্দেহ দূর করে ব্রাজিলে গিয়ে সেওমা ভিজেহা স্বামী আব্দুর রকিবকে নেওয়ার জন্য কাজ শুরু করেন। ২০১৮ সালে ব্রাজিলের ভিসা পাওয়ার পর আব্দুর রকিব ব্রাজিলে পাড়ি জমান। ব্রাজিলে সেওমার সাথে ১ বছর অবস্থান করেন আব্দুর রকিব। সেখানে তাদের সংস্কৃতি, পরিবেশ ও খাবারের সাথে নিজেকে মানিয়ে নিতে না পারায় ২০১৯ সালে বাংলাদেশে চলে আসেন রকিব। ২০২০ সালের শুরুতে আবারও প্রেমিকা সেওমার কাছে ব্রাজিলে পাড়ি জমান আব্দুর রকিব। ২০২০ সালের ডিসেম্বর মাসে স্থানীয় কিছু বাংলাদেশীদের সাথে পরিচয় হয় রকিবের। ২০২১ সালে কয়েকজন বাংলাদেশীদের সঙ্গে অবৈধ পথে আমেরিকায় পাড়ি জমায় রকিব। আমেরিকায় প্রবেশকালে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে আটক হয় আব্দুর রকিব। অবৈধভাবে আমেরিকায় প্রবেশের অপরাধে বাংলাদেশের ৫-৬ লাখ টাকা জরিমানা গুণতে হয় রকিবকে। এরপর থেকে আমেরিকায় অবস্থান করছেন রকিব।

হালিতলা (বারৈকান্দি) গ্রামের তালেব মিয়া জানান, রকিবের পরিবার সূত্রে জানতে পেরেছি রাকিব দ্বিতীয়বার ব্রাজিলে যাওয়ার পর সেখানে স্থানীয় বাংলাদেশীদের সাথে পরিচয় হয়। পরে তাদের সাথে মিলে রকিব আমেরিকায় প্রবেশের চেষ্টা করে, এসময় ৫-৬ লাখ টাকা জরিমানা দিতে হয় রকিবকে। ওইসময় আত্মীয়-স্বজন সকলে মিলে জরিমানার টাকা বাংলাদেশ থেকে পাঠান, বর্তমানে সে আমেরিকায়ই রয়েছে।

রাকিবের পিতা আসকান উদ্দিন জানান, আমার ছেলে ভালো আছে সুস্থ আছে, খুব দ্রুত সে বাংলাদেশে আসবে, তবে রকিব কোথায় আছে তা জানাতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন। আসকান উদ্দিন ছেলে রকিবকে নিয়ে কোনো ধরণের সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ করে ফোন কেটে দেন।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

ফেসবুকে আমরাঃ