ডেস্ক রিপোর্টঃ হঠাৎ করে উত্তাল হয়ে উঠেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। মধ্যরাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ছাত্রী হলও রয়েছে। এমনকি কবি সুফিয়া কামাল হলে মেয়েদের পিটিয়ে রক্তাক্ত করার অভিযোগও পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে হল ছাত্রলীগের সভাপতি ইসরাত জাহান ইশাকে বিশ্ববিদ্যালয় ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কার করা হয়েছে।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের এক জরুরি সিদ্ধান্তে কবি সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রলীগ সভাপতি ইশরাত জাহান এশাকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিস্কার করা হয়েছে।

আজ বুধবার (১১ এপ্রিল) রাতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাই্নের স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য- কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রীদের মারধর ও এক ছাত্রীর পায়ের রগ কেটে দিয়েছে কবি সুফিয়া কামাল হল ছাত্রলীগ কর্মীরা। মঙ্গলবার রাত সাড়ে এগারটার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

হলে হামলা ও সাধারণ ছাত্রীদের মারধরের সময় ফাহমিদা লুবনা নামে একজন ছাত্রী ফোন করে তাদের ওপর ছাত্রলীগ কর্মীদের বর্বর হামলার ভিডিও চিত্র পাঠায়। ওই সময় তিনি কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, “এখানে নেটওয়ার্ক খুব সমস্যা ভাইয়া। ওরা কেন এমন করছে? ওরা কাপুরুষ।”

এরপর তার সঙ্গে মোবাইলে আর যোগাযোগ স্থাপন করা যায়নি। অপর এক ভিডিওতে সাদিয়া ফারজানা ডিনা ছাত্রলীগ কর্মীদের হামলার বিবরণ তুলে ধরেন।

সুফিয়া কামাল হলের ছাত্রলীগ সভাপতি ইফফাত জাহান এশা মোরশেদা বেগম নামের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের এক ছাত্রীর পায়ের রগ কেটে দিয়েছেন। তাকে জরুরী চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। ছাত্রীদের পাঠানো ভিডিও চিত্রে দেখা গেছে, হলের সিঁড়ি ও রুমের মেঝেতে রক্তের ফোঁটা জমে আছে।

এ ঘটনায় হলের ছাত্রীরা ক্ষিপ্ত হলে ওই ছাত্রলীগ নেত্রীর রুমের দরজা বন্ধ করে তাকে আটক করে রাখে। ঘটনার সময় হলের আবাসিক শিক্ষক উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করলেও এখনো উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সর্বশেষ পরিস্থিতিতে জানা যায়, ঘটনার প্রতিবাদে ছাত্রীরা হলের গেট ভেঙ্গে বের হবার চেষ্টা করছে। হলের ভেতর জড়ো হয়ে ছাত্রীরা স্লোগান দিচ্ছে। এসময় অন্য হলের ছাত্র-ছাত্রীরাও সুফিয়া কামাল হলের গেটের সামনে এসে স্লোগান দিচ্ছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: