মাজহারুল ইসলাম।।
কুমিল্লায় সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে দাওয়াত খেয়ে আসার পথে সদর দক্ষিণের চৌয়ারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যানের আবুল কালাম আজাদের উপর হামলার ঘটনায় ঘটেছে। এ ঘটনায় আওয়ামীলীগের অন্তত ৫জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। মুহর্তের মধ্যে এ খবর চার দিকে ছড়িয়ে পড়লে সদর দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামীলীগের উত্তেজিত নেতার্মীরা উপজেলা সংলগ্ন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। এতে সড়কের দু’পাশে শত শত যানবাহন আটকা পড়ে। যার ফলে যাত্রী সাধারণদের চরম দুর্ভোগ পড়তে হয়েছে।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে কুমিল্লা মহানগরীর ২২ নং ওয়ার্ডের হাজী আক্রাম উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ এর সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে। পরে প্রশাসন ও আওয়ামীলীগ নেতাদের প্রায় দেড় ঘন্টা সমোজতা বৈঠক শেষে সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে দোষীদের গ্রেফতারের আশ্বাস প্রদানে মহাসড়ক থেকে ব্যরিকেড উঠিয়ে নেয়া হয়।

আহতরা হলেন চৌয়ারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও চৌয়ারা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ সোহাগ, উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা জামাল পোদ্দার, মেজবাহ উজ্জামান উজ্জল, যুবলীগ নেতা খোরশেদ আলম ও ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা সবুজ।

খবর পেয়ে কুমিল্লা র‌্যাব-১১, ময়নামতি হাইওয়ে থানা পুলিশ ও সদর দক্ষিণ মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে চেষ্টা চালায়। এতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসেনি। খবর পেয়ে অর্থমন্ত্রীর ছোট ভাই সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি গোলাম সারওয়ার, সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল হাই বাবলুসহ উপজেলা আওয়ামীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন।

পরে সদর দক্ষিণ মডেল থানায় চেয়ারম্যান গোলাম সারওয়ার, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল হাই বাবলু, কুমিল্লা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন, কুমিল্লা র‌্যাব-১১ ও ময়নামতি হাইওয়ে থানা পুলিশসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের উপস্থিতে প্রায় দেড় ঘন্টা ব্যাপী বৈঠক শেষে দোষিদের বিচারের আওয়াতায় আনা হবে বলে আশ্বস দিলে সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে মহাসড়ক থেকে উত্তেজিত নেতাকর্মীরা ব্যারিকেড উঠিয়ে নেন। ততক্ষনে মহাসড়কের দু’পাশে অন্তত ৩০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়। এতে যাত্রীদের চারম দুর্ভোগে পোহাতে হয়েছে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মামুন অর রশিদ পিপিএম জানান, এ ঘটনায় আহত খোরশেদ আলম বাদী হয়ে তিন জনের নাম উল্লেখ করে আজ্ঞাত নামা আরো ১৫ জনের নামে মামলা দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা চেয়ারম্যান ও কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি গোলাম সারওয়ার জানান, সদর দক্ষিণে আ’লীগ নেতাকর্মীরা কোন প্রকার গ্রুপিং ছাড়াই শান্তিপূর্ণ ভাবে রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছিল। হঠাৎ কুমিল্লা মহানগরের ২২ নং ওয়ার্ডের কতিপয় উৎসাহি নেতাকর্মী শনিবার দুপুরে সোহাগ চেয়াম্যানসহ ৫ জন দলীয় নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালায়। এতে করে হঠাৎ রাজনৈতিক মাঠ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে ঘটনার সাথে যারা জড়িতদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান তিনি।

এ ঘটনাটির তীব্র নিন্দা জানিয়ে কুমিল্লা মহানগর যুবলীগ সদস্য দুলাল হোসেন অপু জানান, প্রকৃত দোষিদের চিহ্নিতকরে আইনের আওয়াতায় আনার দাবী জানাচ্ছি। এ ছাড়াও অযথা দলের কোন নেতাকর্মীকে যেন জড়িয়ে হয়রানি না করা হয় সে বিষয়ে প্রশাসনের প্রতি দৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: