মানিকগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদের মাসিক সমন্বয় সভায় দুই সদস্যের মধ্যে পাল্টাপাল্টি চড়-থাপ্পর মারার ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় মানিকগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র জেলা যুবলীগের আহব্বায়ক আব্দুর রাজ্জাক রাজাকে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

বুধবার (২৫ মে) উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ছিল মাসিক সমন্বয় সভা। প্রত্যক্ষদর্শীদের সুত্রে জানা গেছে, সভা শেষে দুপুরে খাওয়ার বিরতির সময় প্যানেল মেয়র আব্দুর রাজ্জাক রাজার সাথে ভাড়ারিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আঃ জলিলের কোন একটি বিষয়ে তর্ক বেধে যায়। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যান আঃ জলিলের গালে চড় মারেন আব্দুর রাজ্জাক। এ নিয়ে হট্টগোল বেধে যায় সভার মধ্যে। এক পর্যায়ে আঃ জলিলও পাল্টা চড় মারেন আব্দুর রাজ্জাকের গালে।

এসময় সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ইসরাফিল হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন, আন্যান্য দপ্তরের প্রধান এবং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ইকবাল হোসেন সদর থানা পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ এসে আব্দুর রাজ্জাক রাজাকে থানায় নিয়ে যান।

বুধবার সন্ধা ছয়টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আব্দুর রাজ্জাক রাজা থানা হেফাজতে রয়েছেন। তারসাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে মুঠোফোনে যোগাযোগে করা হলে আঃ জলিল জানান, তিনি থানায় অবস্থান করছেন এবং মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

যোগাযোগ করা হলে উপজেলা চেয়ারম্যান ইসরাফিল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধির এমন আচড়ণ দু:খজনক। আইনগত ভাবে বিষয়টি ফয়সালা হওয়াই উচিৎ বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রউফ সরকার জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ফোন পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে প্যানেল মেয়র আব্দুল রাজ্জাক রাজাকে থানার হেফাজতে আনা হয়েছে। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ আব্দুল লতিফ জানান, বিষয়টি তিনি জানতে পেরেছেন। লিখিত অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: