স্কুল ব্যাগ কাঁধে নিয়েই বিএনপি’র সমাবেশে শিশু শিক্ষার্থীরা

কাঁধে থাকা ব্যাগে রয়েছে বই, খাতা, কলমসহ নানা শিক্ষা উপকরণ। সমাবেশে কয়েকজন শিক্ষার্থী পাশাপাশি বসে মনোযোগ দিয়ে শুনছে বক্তব্য। কথা বলে জানা গেল, তারা চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌরসভার হরিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র। সকলে মিলে একসাথে যোগ দিয়েছে বিএনপির একটি বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে। বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে প্রাইভেটে যাওয়ার কথা রয়েছে বলে জানায় তারা।

হরিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মতোই চাঁপাইনবাবগঞ্জে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ নিয়েছে আরও অন্তত ৫-৭টি শিক্ষার্থীদের দল। তারা জানান, এলাকার বড় ভাইদের কথায় দল বেঁধে যোগ দিয়েছে জেলা বিএনপির সমাবেশে। বিক্ষোভ সমাবেশে থাকা অন্তত ৮ শিক্ষার্থীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি, ছাত্রদল বা এর সহযোগী কোন সংগঠনের সাথে তাদের কোন সম্পর্ক নেই।

হরিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র সিয়াম জানায়, একই ক্লাসে পড়ি এমন ৪ জন বন্ধু মিলে সমাবেশে এসেছি। পিঠে থাকা ব্যাগে বই, খাতা, কলম রয়েছে। সমাবেশ শেষ করে একটি প্রাইভেট আছে সেখানে যাব। এর আগে কোনদিন এমন সমাবেশে আসেনি বলে জানায় সিয়াম।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার মহারাজপুর শেখপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র আসলাম আলী জানায়, সহপাঠী মনিরুল তাকে ঢেকে নিয়ে এসেছে বিএনপির সমাবেশে। এবিষয়ে মনিরুল জানায়, এলাকার এই বড় ভাই তাদেরকে নিয়ে এসেছে। তবে সমাবেশে আসার আগে জানতো না কোন দলের সমাবেশে আসছে তারা।

সদর উপজেলার বারোঘরিয়া ইউনিয়নের লক্ষীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ট শ্রেণীর ছাত্র সাব্বির রহমান জানায়, তাদের এলাকার অনেক ছেলে এই সমাবেশে এসেছে। তাই সবার সাথে এসেছি। কি নিয়ে সমাবেশ, কেন সমাবেশ আয়োজন করা হয়েছে, এসবের কিছুই জানি না। এসে দেখি সমাবেশে অনেক লোকজন রয়েছে।

গোমস্তাপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্র নিরব জানায়, আমি একায় নয়, আমার ক্লাসের আরও ৫ জন এসেছে এই সমাবেশে। বাড়িতে জানে কি না এমন প্রশ্নের উত্তরে সে জানায়, বাসায় না বলেই সমাবেশে এসেছে তারা। কারন বাসায় জানতে পারলে আসতে দিতো না।

দেশব্যাপী বিএনপি নেতাকর্মীদের উপর মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। জেলা বিএনপির আয়োজনে বৃহস্পতিবার (২০ অক্টোবর) বিকেলে জেলা বিএনপির আয়োজনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা শহরের সোনার মোড়ে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা বিএনপির সিনিয়র আহ্বায়ক অ্যাড. রফিকুল ইসলাম টিপুর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম, জেলা মহিলা দলের সভাপতি সিদ্দিকা সিরাজুম মুনিরা, জেলা বিএনপির সদস্য ইয়াজদানি জয়ার্জ, ভোলাহাট উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুল কাদের, সদর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ওবায়েদ পাঠান, ভোলাহাট উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহনাজ খাতুনসহ অন্যান্যরা।

এবিষয়ে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, বাবা-দাদাদের সাথে অনেক শিশুই সমাবেশে আসে। তাছাড়াও অনেক শিশু শখ করে সমাবেশে আসতে পারে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আবদুর রশিদ জানান, বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে বই-খাতা নিয়ে কোন রাজনৈতিক সমাবেশে গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ রয়েছে। তবে বিদ্যালয়ে পাঠদান চলার পর শিক্ষার্থীরা যেই বয়সেরই হোক না কোন, যেকোন জায়গায় বা যেকোন রাজনৈতিক সমাবেশে যেতে পারে। এতে আমাদের কোন করনীয় নেই।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার অফিসার-ইন-চার্জ (ওসি) আলমগীর জাহান মুঠোফোনে বলেন, সমাবেশে পুলিশ শুধুমাত্র আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির যাতে অবনতি না হয় সে বিষয়গুলো দেখে থাকে। সমাবেশে যদি কোন অপ্রীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়, সেক্ষেত্রে পুলিশ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারে। তবে আয়োজকরা কাদেরকে নিয়ে সমাবেশ করছে, এতে আমাদের কোন করনীয় নেই।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  

ফেসবুকে আমরাঃ