হেলমেটধারীরা সবাই সন্ত্রাসী, ছাত্রলীগের কোনো অস্তিত্ব নেই: পুলিশ

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষে দুই জন নিহত হয়েছে। তাঁদের মধ্যে একজন কুরিয়ার কর্মী নাহিদ হোসেন, অন্যজন দোকানকর্মী মোরসালিন। দুজনের এ হত্যা মামলার তদন্তকারী সংস্থা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম বলেছেন, নাহিদ হত্যা মামলার আসামিদের শনাক্ত করা গেলেও মোরসালিন কীভাবে মারা গেছেন সেটা নিশ্চিত হতে পারেননি তাঁরা। তবে তাঁদের ধারণা, সংঘর্ষে ইটের আঘাতেই মারা গেছেন তিনি। বুধবার (২৭ এপ্রিল) ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম।

তিনি বলেন, ঘটনার তদন্তে তাঁদের হাতে ইতিমধ্যে পর্যাপ্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ চলে এসেছে। শিগগিরই আসামিদের গ্রেপ্তার করা হবে। এ মামলার অগ্রগতি সম্পর্কে যুগ্ম কমিশনার বলেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে নাহিদ হত্যা মামলায় অনেককে শনাক্ত করা গেছে। তবে ঈদের ছুটিতে হল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা বাসায় চলে গেছেন। আবার অনেকে আত্মগোপনে আছেন। তাঁদের ধরতে একাধিক গোয়েন্দা পুলিশের টিম অভিযান চালাচ্ছে।

শনাক্তকারীদের মধ্যে ছাত্রলীগের সদস্য আছেন কি না, জানতে চাইলে মাহবুব আলম বলেন, সেখানে ছাত্রলীগের কোনো অস্তিত্ব নেই। তবে আমাদের কাছে রাজনৈতিক পরিচয়ও কোনো মুখ্য নয়। ওই সংঘর্ষে যাঁরা হেলমেট পরে মাঠে নেমেছেন, তাঁরা সবাই সন্ত্রাসী। তাঁদের সবাইকে গ্রেপ্তার করা হবে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার ১৮ এপ্রিল রাতে রাজধানীর নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী-কর্মচারীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজের ছাত্রদের সংঘর্ষ হয়। নিউমার্কেটের দুটি খাবারের দোকানের দুই কর্মীর বিতণ্ডা থেকে ওই ঘটনার সূত্রপাত। এর জের ধরে ১৯ এপ্রিল (গত মঙ্গলবার) দিনভর রাজধানীর মিরপুর সড়কের নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা কলেজের ছাত্রদের সঙ্গে স্থানীয় বিভিন্ন দোকানমালিক-কর্মচারী ও হকারদের সংঘর্ষ হয়। এ সংঘর্ষে মারা যান দুজন। নিউমার্কেট এলাকায় সংঘর্ষের ঘটনায় মোট পাঁচটি মামলা হয়। এর মধ্যে হত্যা মামলা দুটি। পাঁচ মামলায় মোট আসামি ১ হাজার ৮০০ জন। এর মধ্যে নাম উল্লেখ করা আসামি ২৪ জন, অন্যরা সবাই অজ্ঞাতপরিচয়।

     আরো পড়ুন....

পুরাতন খবরঃ

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  

ফেসবুকে আমরাঃ