ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কাছে বিভিন্ন সংস্থা কু-প্রস্তাব দিয়েছে বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির আমির চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম। শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক আউটার স্টেডিয়ামে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘অনেক টাকা, দলের ১০ জনকে এমপি বানানোসহ নানা কু-প্রস্তাব পেয়েছি। পরিষ্কার করে বলতে চাই, টাকা দিয়ে চরমোনাই পীরকে কেনা যাবে না।’

সরকারের উদ্দেশ্যে সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, ‘আপনারা ইসলাম ধ্বংস করার পরিকল্পনা করছেন। সবচেয়ে বড় ষড়যন্ত্র হলো শিক্ষা থেকে ইসলাম শিক্ষাকে তুলে দেওয়া। সব শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড নয়। কারণ সত্যিই যদি সব শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড হতো তাহলে ১০০ জনের মন্ত্রী-এমপির মধ্যে ৯৭ জন উল্লেখযোগ্য দুর্নীতিগ্রস্ত অর্থাৎ চোর। এটি তদন্ত করে একটি সংস্থা বের করেছে। আর তিনজন যারা আছে, তাঁরাও চোর কিন্তু কম দুর্নীতিগ্রস্ত। দেশের এমপি-মন্ত্রী দেশ পরিচালনায় যারা দায়িত্ব পালন করছে তাঁরাও তো শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছে। কিন্তু এই শিক্ষার মাধ্যমে তাঁদের মানুষ বানাতে পারে নাই, কুত্তার চেয়ে খারাপ বানিয়েছে। এই জন্য ইসলাম শিক্ষার গুরুত্ব অনেক।’

চরমোনাই পীর আরও বলেন, ‘শুধু মুসলিমরা নয়, যুগে যুগে বিভিন্ন পণ্ডিতেরা স্বীকার করেছেন—শান্তির দূত হলেন হজরত মুহাম্মদ স. । সুতরাং, যারা ইসলামকে মুছে দিতে চায়, তাদের বলব আমরা আল্লাহর দল আর ওরা শয়তানের। শয়তান কখনো আল্লাহর দলের সামনে টিকে থাকতে পারবে না। আমাদের কাছে বিভিন্ন ধরনের কু-প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। পরিষ্কার করে বলতে চায়, টাকা দিয়ে চরমোনাই পীরকে কেনা যাবে না। আমাদের টাকা দেওয়া হবে, দলের ১০ জন এমপি দেওয়া হবে বিভিন্ন ধরনের প্রস্তাব নিয়ে আসছে। কিন্তু তাঁরা বুঝতে পারেনি, আমরা এসব কু-প্রস্তাব মেনে নেব না।’

আওয়ামী লীগের সবাই দুর্নীতিবাজ নয় বলে মন্তব্য করেছেন মুহাম্মদ রেজাউল করীম। তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগের সবাই দুর্নীতিবাজ নয়, তেমনি আবার বিএনপিতেও ভালো মানুষ আছে। দেশের সব নীতিবান, ভালো মানুষ ও আদর্শ নাগরিকদের নিয়ে আমরা সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে চাই।’

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: