বিএনপির সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা বলেছেন, বায়তুল মোকাররমের সহিংসতার ভিডিও যখন হাটহাজারীতে গিয়েছে সেখানে চারটা লাশ পড়েছে। হাটহাজারীর ঘটনার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ব্যাপকভাবে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়ে। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সবচেয়ে বেশি ১৩ জনের প্রাণহানি হয়েছে। তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ওবায়দুল মোকতাদির তিনি স্পষ্ট ভাবে বলেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ফেইল করেছে, প্রশাসন এখানে কোনো রকমের ব্যবস্থা নিতে পারেনি। এই যে ১৭টা লাশ পড়েছে এটার জবাব সরকারকে দিতে হবে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ততটাই ততটুকুই ফোর্স ব্যবহার করতে পারবে যতটুকু তার জীবন রক্ষার জন্য প্রয়োজন।
সাম্প্রতি একটি বেসরকারি টেলিভিশনের এক টকশো অনুষ্ঠানে বিএনপির এই সাংসদ এসকল কথা বলেন।

রুমিন ফারহানা বলেন, গত কয়েকদিন ধরে দেখছি আওয়ামী লীগ প্রাণপণ চেষ্টা করছে বিএনপির ঘাড়ে দোষ চাপানো। আমরা দেখছি একটার পর একটা মামলা করা হচ্ছে সেই মামলায় অজ্ঞাতনামা আসামি দেয়া হচ্ছে পাঁচ ছয় হাজার থেকে অসংখ্য আসামি। অর্থাৎ মামলাগুলোকে এক রকম তৈরি করে রাখা হচ্ছে ভবিষ্যতেকে সামনে রেখে। সামনে তারা দেখবে বিরোধী দল বা বিরোধী মতের কাকে কাকে এই মামলাতে সংযুক্ত করা যায়। অবশ্যই অতীতের অভিজ্ঞতা থেকে বলা যায় তারা বিএনপিকে টার্গেট করার জন্যই এই নকশাই করছে।

তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশে সফরের প্রতিবাদে ২৬ মার্চ বায়তুল মোকাররমে যে বিক্ষোভ হয়েছে সেখানে দেখেছি পুলিশ ছিল, পরবর্তীতে আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা একত্রিত হয়ে হামলা চালিয়েছে।

বিএনপির এই সাংসদ আরও বলেন, হেফাজতের সদস্য যারা আছেন বা বাম সংগঠনের যারা আন্দোলন করেন তারা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেছেন যতটুকু ভিডিওতে আসছে। ইটপাটকেলের জবাবে আপনি যদি গুলি করেন আর সেই ভিডিও ছড়িয়ে যদি বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় আনাচেকানাচে অসন্তোষ তৈরি করে ধর্মপ্রাণ মানুষ যদি পথে নেমে আসেন তখন সেই দায়টা আপনি কাকে দিবেন।

“প্রথমত বাইতুল মোকাররমে সহিংসতায় যদি যুবলীগ ছাত্রলীগ না জড়াতেন তাহলে হয়তো সহিংসতা এতদূর যেত না। হেফাজত যে বিবৃতি দিয়েছেন সেখানে তারা বলেছেন আমাদের ওপর যদি হামলা না হতো আমরা বড়জোর প্রটেস্ট করতাম।”

রুমিন বলেন, ডান দল হোক বা বাম দল হোক আপনি তাকে তো তার মত প্রকাশ করতে দিবেন, সেখানে আপনি তাকে গুলি করবেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে লাশ ফেলবেন, আপনি তার (নরেন্দ্র মোদি) তিন দিনের প্রটেস্টের মধ্যে বারংবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে গুলি করবেন। হেলমেট বাহিনী দিয়ে তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়বেন সেটাতে হতে পারে না।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: