আগামী ২৭ সেপ্টেম্বরের পর থেকে দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয় ধাপে ধাপে খুলে দেওয়া হবে। তবে এর মধ্যেই সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন কাজ শেষ করা হবে। এরপর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের একাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদন নিয়ে সশরীরে পাঠদান কার্যক্রম শুরু ও আবাসিক হল খুলতে পারবে। মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খোলা ও ক্লাসে পাঠদান শুরুর বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যদের সঙ্গে বৈঠক করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বৈঠক থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয় খোলার ব্যাপারে বলা হয়েছে, ২৭ সেপ্টেম্বরের পর কর্তৃপক্ষ চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় খুলতে পারবে। সেক্ষেত্রে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল বৈঠক করে খোলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে। তাছাড়া যেসব শিক্ষার্থীদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারা জন্ম নিবন্ধন সনদের মাধ্যমে টিকার নিবন্ধন করতে পারবেন বলে বৈঠকে বলা হয়েছে। বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় খুলতে সিদ্ধান্ত নেবে একাডেমিক কাউন্সিল। তবে ২৭ সেপ্টেম্বরের আগে সব শিক্ষার্থীদের টিকার জন্য রেজিস্ট্রশন করতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়গুলো দ্রুত খোলার কথা ভাবা হচ্ছে। প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে সশরীরে শ্রেণি কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

ইউটিউবে আমাদের চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন: