কুমিল্লায় পাঁচ লাখ টাকা মূল্যের অবৈধ সেগুন কাঠবোঝাই কাভার্ডভ্যান আটক করেছে বন বিভাগ। এ সময় কাঠবোঝাই অবৈধ কাঠ ও কাভার্ডভ্যান রেখে পালিয়েছে চালক ও তার সহযোগী।

রোববার কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চাষাড়া এলাকা থেকে অবৈধ সেগুন কাঠবোঝাই কাভার্ডভ্যান আটক করা হয়।

কুমিল্লা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নূরুল কবির জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সুয়াগাজী ফরেস্ট চেক স্টেশনে ঢাকা অভিমুখী কাভার্ডভ্যানকে থামাতে সংকেত দিলে চালক দ্রুত গতিতে পালাতে চেষ্টা করে।

পরবর্তীতে অন্য একটি গাড়ি দিয়ে কাভার্ডভ্যানটিকে ধাওয়া করলে সদর দক্ষিণ উপজেলার চাষাড়া এলাকায় গিয়ে চালক ও তার সহযোগী কাঠবোঝাই গাড়ি সড়কে রেখে পালিয়ে যায়।

পরে তল্লাশি চালিয়ে কাভার্ডভ্যানের ভেতর থেকে প্রায় পাঁচ লাখ টাকার সেগুন কাঠ উদ্ধার করা হয়। কাঠে বন বিভাগের কোনো প্রকার হাতুড়ির চিহ্ন না থাকায় ধারণা করা হচ্ছে কাঠগুলো অবৈধভাবে পাচার করা হচ্ছে। এছাড়া গাড়িতে কোনো প্রকার কাগজপত্রও পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, কাভার্ডভ্যান দিয়ে অবৈধভাবে কাঠ পাচারের ঘটনায় কুমিল্লার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজেস্ট্রেট বন আদালতে একটি মামলা হয়েছে।

অভিযানে বিভাগীয় বন বিভাগের ফরেস্ট রেঞ্জার মো. তোষাররফ হোসেনে সঙ্গে ছিলেন, ফরেস্টার দীলিপ কুমার দাস, বন প্রহরী আবুল কালাম আজাদ, এম এ মান্নান, মো. জুলফু মিয়া এবং মো. আবুল হোসাইন।

বিভাগীয় বন বিভাগের ফরেস্ট রেঞ্জার মো. তোষাররফ হোসেন বলেন, মহাসড়কে অবৈধ কাঠ পাচার বন্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে।